• বার্তা ডেস্ক
  • ২৯ মে ২০১৭ ১১:২৩:৪৯
  • ২৯ মে ২০১৭ ১১:২৩:৪৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

বালির বস্তা দিয়ে ব্রিজের খুঁটি!

ছবি : সংগৃহীত

ব্রিজের খুঁটির কাজ করতে বালির বস্তা দিয়ে ঠেস দেওয়া হয়েছেকক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চকরিয়ায় বালির বস্তা দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ একটি ব্রিজ রক্ষার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে সড়ক ও জনপদ বিভাগ। এ কারণে ওই ব্রিজের তলদেশে দেওয়া হয়েছে শত শত বালির বস্তা। এই বালির বস্তা দিয়েই খুঁটির কাজ করা হচ্ছে। কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন মিডিয়াসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি ভাইরাল হলেও কর্তৃপক্ষ এখনও কোনও পদক্ষেপ নেয়নি। সড়ক ও জনপথ অধিদফতর (সওজ)বলছে,পুনঃনির্মাণ কাজের বাজেট না পাওয়া পর্যন্ত বালির বস্তা দিয়েই যান চলাচল অব্যাহত রাখা হবে।

২০১৩ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি মাতামুহুরী ব্রিজের রিলিং ভেঙে নিহত হন ১৮ জন। এরপর থেকে ব্রিজটি ঝঁকিপূর্ণ ঘোষণার দাবি ওঠে বিভিন্ন মহল থেকে। কিন্তু দীর্ঘ চার বছরেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা না করেই যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রেখেছে। সম্প্রতি ওই ব্রিজটির মাঝখানে নতুন করে নিচু হয়ে যাওয়ায় যানবাহন চলাচলে মারাত্মক বিঘ্ন ঘটছে। যেকোনও সময় ঘটতে পারে ভয়াবহ দুর্ঘটনা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ১৯৬০ সালে চকরিয়ায় মাতামুহুরী ব্রিজটি নির্মিত হয়। এর মেয়াদকাল একশ’ বছর ধরা হলেও তার আগেই ব্রিজটির বিভিন্ন স্থান ভেঙে পড়ে ও নিচু হয়ে যায়। ফাটলও ধরেছে কয়েকটি স্থানে। ব্রিজের ঠিক মাঝখানে বড় ধরনের গর্ত হওয়ায় পাটাতনের মাধ্যমে জোড়াতালি দিয়ে যানবাহন চালু রেখেছে কর্তৃপক্ষ। এতে কোনও যাত্রী ও পণ্যবাহী গাড়ি ব্রিজে উঠলেই কেঁপে উঠায়, আতঙ্ক শুরু হয় যাত্রীদের মধ্যে। বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় এভাবেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করছে লাখো মানুষ। এসব সমস্যার পাশাপাশি সম্প্রতি সেতুর পিলারও নিচু হয়ে যাওয়া ও ফাটল ধরায় বালির বস্তার ঠেস দিয়ে রাখতে হয়েছে।

সওজ এর সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রায় চার বছর আগে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চকরিয়ার মাতামুহুরী সেতুর মাঝখানের ঢালাইয়ের একটি অংশে সামান্য নিচু হয়ে যায়। ওই সময় ভারী বৃষ্টিতে একটু একটু করে বড় অংশ নিচু হয়ে যায়। নিচু হওয়া ক্ষতস্থানে লোহার পাটাতন দিয়ে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক করা হয়। কিন্তু সেই পাটাতন অপেক্ষাকৃত একটু উচুঁতে স্থাপন করতে হওয়ায় ভোররাতে পর্যটকবাহী একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারালে পাশের রেলিং ভেঙে নিচে নদীর চরে পড়ে যায়। ভয়াবহ এই দুর্ঘটনায় অন্তত ১৮ জনের প্রাণহানি ঘটে। এরপর সড়ক ও জনপথ বিভাগ ভেঙে যাওয়া রেলিং মেরামত এবং নিচু হয়ে যাওয়া অংশ আবারও রিপিয়ারিং করে যানবাহন চলাচল নির্বিঘ্ন করার চেষ্টা করে। এভাবেই ঝুঁকির মধ্যেই এতদিন ধরে যানবাহন চলাচল করে আসছে।

চকরিয়া উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী কার্যালয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আবু এহেছান মোহাম্মদ আজিজুল মোস্তফা বলেন, ‘যানবাহন চলাচলের ক্ষেত্রে ঝুঁকি এড়াতে সেতুর নিচে মাটির ওপর থেকে গার্ডারের তলানী পর্যন্ত বালুর বস্তা দেওয়া হয়েছে। এরপর চলছে বালুর বস্তার চারিদিকে ইটের গাঁথুনি দেওয়ার কাজ, যাতে বালুভর্তি বস্তা সরে যেতে না পারে। এছাড়াও সেতুর ওপর দিয়ে যাতে দশ টন ওজনের বেশি পণ্যবাহী গাড়ি চলাচল করতে না পারে, সেজন্য সেতুর দুই দিকে সতর্কতামূলক সাইনবোর্ড স্থাপন করা হয়েছে।’

চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাহেদুল ইসলাম মাতামুহুরী ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ উল্লেখ করে বলেন, ‘জোড়াতালি দিয়ে যান চলাচল করছে। সওজের পক্ষ থেকে আমাকে বিষয়টি মৌখিকভাবে জানানো হয়েছে। এ বিষয়ে ট্রাফিক পুলিশের ওসিকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে যাতে করে মাতামুহুরী ব্রিজ দিয়ে ১০ টনের অধিক পণ্য বোঝাই যানবাহন চলাচল না করে। বিষয়টি জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভায় উত্থাপন করা হয়েছে।’

কক্সবাজারের নির্বাহী প্রকৌশলী রানাপ্রিয় বড়ুয়া বলেন, ‘শুধু মাতামুহুরী ব্রিজ নয়। ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে সাঙ্গ, ইন্দ্রপুল ও বরগুনি সেতুও। এসব ব্রিজ পুনঃনির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এসব ব্রিজ চারলেন বিশিষ্ট করা হবে। লোড ক্যাপাসিটির অতিরিক্ত পণ্য বোঝাই যানবাহন চলাচলের কারণে মেয়াদের আগেই সেতুগুলো ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে।

নির্বাহী প্রকৌশলী আরও বলেন, ‘চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চারটি সেতু নির্মাণ করতে ৩৬০ কোটি টাকা ব্যয় নির্ধারণ করে বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকে। জাপানি সংস্থা জাইকা ও বাংলাদেশ সরকার যৌথ উদ্যোগে এ চারটি সেতু নির্মাণ করার সম্মতি দিয়েছে। সেতুগুলোর মধ্যে মাতামুহুরী ও সাঙ্গু ৩৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের এবং ইন্দ্রপুল ও  বরগুনি সেতু দু’টি ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের। ইতোমধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ মাতামুহুরী সেতু নির্মাণের জন্য মাটি পরীক্ষা করা হয়েছে। 

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

ব্রিজ বালু

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.1782 seconds.