• বিদেশ ডেস্ক
  • ২৬ মে ২০১৯ ১৭:৩৭:৫৯
  • ২৬ মে ২০১৯ ১৯:২১:১৪
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

ভারতের লোকসভার ৪০ ভাগ সদস্য হত্যা-ধষর্ণের আসামি

ভারতের লোকসভা। ছবি: সংগৃহীত

মাত্র শেষ হলো ভারতের লোকসভা নির্বাচন। ৫৪৩ আসনের মধ্যে বর্তমান দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ক্ষমতাশীন দল বিজেপি ও তার জোট এনডিএ। কিন্তু নির্বাচিত এসব লোকসভার সদস্য বা এমপির মধ্যে ৪০ শতাংশের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে ফৌজদারি অপরাধের।

শনিবার অ্যাসোসিয়েশন অব ডেমোক্রেটিক রিফর্মস (এডিআর) নামের একটি সংস্থা তাদের এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য প্রকাশ করে।

তাদের মধ্যে কেউ হত্যা বা কেউ ধর্ষণ মামলার আসামি। এমনি এ তালিকা আরো বাড়ছে বলে জানা গেছে। এমন খবর প্রকাশ করেছে ভারতীয় সংবাদ সংস্থা ইন্ডিয়া টুডে, দ্য ইকোনোমিক টাইম ও ফ্রান্স ভিত্তিক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম এজেন্সি ফ্রান্স-প্রেস (এএফপি)।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারতের লোকসভায় বা পার্লামেন্টে অপরাধীদের তালিকা ক্রমে বাড়ছে। লোকসভায় বিরোধী দলের এক সদস্যের বিরুদ্ধে হত্যা ও দস্যুতাসহ ২০৪টি মামলা রয়েছে।

বৃহস্পতিবার নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর দেখা গেছে, লোকসভার ৫৪৩টি আসনের অন্তত ২৩৩ জন সদস্য ফৌজদারি মামলার আসামি। লোকসভায় বিজয়ী ৫৩৯ জনের উপর জরিপ চালায় সংস্থাটি।

এ নিয়ে এডিআরের নির্বাচনবিষয়ক প্রধান অনিল ভার্মা বলেন, ‘ভারতের পার্লামেন্টে এমন একটা বিরক্তিকর প্রবণতা রয়েছে। গণতন্ত্রের জন্য এটা ক্ষতিকর।’

সংস্থাটির পক্ষ থেকে বলা হয়, ২০০৪ সালে তাদের জরিপ শুরু হওয়ার পর ফৌজদারি অপরাধীদের পার্লামেন্ট সদস্য হওয়ার সংখ্যা এটাই সর্বোচ্চ। ক্ষমতাশীল বিজেপি থেকে জয়ী ৩০৩ প্রার্থীর মধ্যে ১১৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে। এমকি তাদের মধ্যে একজন সন্ত্রাসবাদের দায়ে অভিযুক্ত। আবার কংগ্রেস থেকে নির্বাচিত ৫২ এমপির মধ্যে ২৯ জন অপরাধী। কেরালার ইডুক্কি থেকে নির্বাচিত হয়েছেন দীন কুরিয়াকোস। তার বিরুদ্ধে ২০৪টি ফৌজদারি অপরাধের মামলা রয়েছে।

আরো বলা হয়, বিগত এক দশকে দেশটিতে নির্বাচিত লোকসভার সদস্যদের মধ্যে গুরুতর অপরাধে অভিযুক্ত আসামিদের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে। তাদের মধ্যে ১১ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা, ২০ জনের বিরুদ্ধ হত্যাচেষ্টা ও তিনজনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ রয়েছে।

এর মধ্যে বিজেপির লোকসভার সদস্য প্রজ্ঞা ঠাকুরের বিরুদ্ধে মসজিদে হামলা চালিয়ে ছয়জনকে হত্যার অভিযোগ রয়েছে। যদিও এসব অভিযোগ অস্বীকার করছেন তিনি।

কিন্তু দলগুলো অনেক সময় নিজ সদস্যদের বিরুদ্ধে আসা অভিযোগ উড়িয়ে দেন এবং এ গুলোকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা বলে আখ্যায়িত করছেন।

বাংলা/এনএস

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

আসামি লোকসভা ভারত

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0204 seconds.