• ১৭ মে ২০১৯ ০২:০৭:১৪
  • ১৭ মে ২০১৯ ০২:০৭:১৪
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

এফডিসির ঝর্ণা শুটিং স্পটের বেহাল দশা

ঝর্ণা শুটিং স্পট। ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশনের (বিএফডিসি) শুটিং স্পটগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ঐতিহ্যবাহী শুটিং স্পট হচ্ছে ঝর্ণা শুটিং স্পট। এই স্পটটি চলচ্চিত্রের দর্শকের কাছেও বেশ পরিচিত। বহু কালজয়ী গানের শুটিং হয়েছে এখানে। চলচ্চিত্রের সোনালী অতীতের সাক্ষী এই স্পটটিতে শিল্পীদের অনেক স্মৃতি জড়িয়ে আছে। তাই তো স্পটটিতে আসলে এখনও নস্টালজিক হয়ে পড়েন চলচ্চিত্র শিল্পীরা।

এই স্পটে শুটিং করেছেন অনেক কিংবদন্তি অভিনেতা -অভিনেত্রীরা। সালমান শাহ, মান্না, ইলিয়াস কাঞ্চনের মতো শিল্পীরা একটা সময়ে স্পটটিতে দিন-রাত শুটিং করতেন। তবে এখন আর খুব একটা শুটিং দেখা যায় না এখানে। এই স্পটের বর্তমান অবস্থা খুবই নাজুক।

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ঝর্ণা শুটিং স্পটের আশপাশ জুড়ে ময়লা-আবর্জনায় ভর্তি। ময়লা পানি জমে আছে। দেখে মনে হলো এটি যেন শুটিং স্পট নয়, ডাস্টবিনে পরিণত হয়েছে। দেখেই বোঝা গেছে কতৃপক্ষ এই স্পটটি টিকিয়ে রাখার জন্য কতটুকু সচেতন। যদিও এফডিসির সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য প্রতি বছর সরকার কতৃক ভালো বাজেট দেওয়া হয়ে থাকে।

এ বিষয়ে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট মানুষের মতামত, বর্তমানে চলচ্চিত্রের শুটিং কম হওয়া এবং কতৃপক্ষের নজরদারি না থাকার কারণে স্পটটি দিন দিন ধ্বংসের পথে।

কেন ঝর্ণা স্পটের এই বেহাল দশা? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে যোগাযোগ করা হয় বিএফডিসির গণসংযোগ কর্মকর্তা হিমাদ্রি বড়ুয়ার সাথে। তিনি বাংলা’কে বলেন, ‘এফডিসি নিয়ে আমাদের নতুন পরিকল্পনা রয়েছে। কয়েকটি স্পট ভেঙ্গে নতুন ভবন নির্মাণ করা হবে। তবে ঝর্ণা শুটিং স্পট থাকবে। আগামী এক মাসের মধ্যেই এই স্পটটি সংস্কারের কাজ শুরু করবো।’

শুধু ঝর্ণা স্পট নয় সুইমিং পুল ও কড়ইতলারও একই দশা। এ নিয়ে কয়েকজন চলচ্চিত্র নির্মাতা ও শিল্পীরা বলেছেন, ঐতিহ্য ধরে রাখার জন্য হলেও এই স্পটগুলো বাঁচিয়ে রাখা উচিত।

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0194 seconds.