• বিনোদন প্রতিবেদক
  • ১৬ মে ২০১৯ ১১:৩৭:০৭
  • ১৬ মে ২০১৯ ১১:৩৭:০৭
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন অভিনেত্রী মায়া ঘোষ

ছবি : সংগৃহীত

মায়া ঘোষ (৭০)। প্রায় দুই শতাধিক সিনেমা ও নাটকে অভিনয় করেছেন। দুর্দান্ত অভিনয়ে মন জয় করেছেন হাজারো মানুষের। সেই মানুষটি এখন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। মরণব্যাধি রোগ ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে যশোরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন তিনি।

জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে এই মানুষটির চিকিৎসা ব্যয় নিয়ে বিপাকে পড়েছে পরিবার। ব্যয়বহুল চিকিৎসায় হিমশিম খাচ্ছে স্বজনরা। তবুও হাল ছাড়েননি তারা। মায়া ঘোষের ছেলে দীপক ঘোষ জানান, ২০০০ সালে মায়া ঘোষের শরীরে ক্যান্সার ধরে পড়ে। ২০০১ সালের ফেব্রুুয়ারিতে কলকতার সরোজ গুপ্ত ক্যান্সার হাসপাতালে চিকিৎসা শুরু হয়। ধারাবাহিকভাবে চলে চিকিৎসা। ২০০৯ সালের দিকে অনেকটা সুস্থ্য হয়ে ওঠেন। এরপর কিডনি, লিভার ও হাটুর সমস্যা দেখা দেয়। তার চিকিৎসা চলছিল। ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে আবারও ক্যান্সার ধরা পড়ে। পুনরায় কলকাতার সরোজগুপ্ত ক্যান্সার হসপিটালে নেওয়া হয় চলতি বছরের জানুয়ারিতে।

সেখান থেকে ফিরে পুনরায় মার্চে যাওয়ার কথা বলা হয়। ১৩ মার্চ শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। এরপর ২২ মার্চ কলকাতায় নেওয়া হয়। শারীরিক অবস্থার খুব বেশি উন্নতি হয়নি। মায়া ঘোষও দেশে ফেরার জন্য ব্যাকুল ছিলেন। এক পর্যায়ে গত ১৫ এপ্রিল তাকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়।

দীপক ঘোষ বলেন, 'মায়ের চিকিৎসায় প্রতিদিন প্রায় ১৫ হাজার টাকা ব্যয় হচ্ছে। মায়ের কাছেই আছি দুই ভাই। তেমন কাজ করতে পারছি না। আবার খরচ করতে গিয়েও হিমশিম খাচ্ছি।'

তিনি আরও বলেন, 'মা দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ্য। কয়েক দফায় সহযোগিতা পেয়েছি। মায়ের অবস্থা ভাল না। শেষ চেষ্টা করে যাচ্ছি। মায়ের চিকিৎসা ব্যয় বহন করতে আমরা ঋণগ্রস্থ হয়ে পড়েছি।'

উল্লেখ্য, ১৯৪৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর যশোরের মণিরামপুর উপজেলার প্রতাপকাটি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন মায়া ঘোষ। তার বাবার নাম শংকর প্রসাদ গাঙ্গুলি। পরবর্তীতে একই উপজেলার মাছনা-খানপুর গ্রামের দিলীপ ঘোষের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। ১৯৮৪ সালে তারা ঢাকায় স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। এর আগে ১৯৮১ সালে ‘পাতাল বিজয়’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অভিনয় শুরু করেন। সর্বশেষ ২০১৬ সালে এটিএন বাংলার জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘ডিবি’ অভিনয় করেছেন।

 

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0171 seconds.