• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ১৩ মে ২০১৯ ১৪:৫৫:৪৯
  • ১৩ মে ২০১৯ ১৪:৫৭:৩৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

ইফতারের জন্য থামতে বলায় হেলপারের ধাক্কায় যুবক নিহত

ছবি : সংগৃহীত

রাজধানীর বনানীতে বাসের চাপায় প্রাণ হারালেন ২৫ বছর বয়সী হারুন। তার গ্রামের বাড়ি শেরপরে এবং পেশায় এবং তিনি রং মিস্ত্রির কাজ করতেন। শনিবার গ্রামের বাড়িতে যাওয়ার জন্য মহাখালীর টার্মিনাল থেকে গাড়িতে যাওয়ার সময় পথে ইফতারি করার জন্য নামতে চাইলে হেলাপার তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিলে এ ঘটনা ঘটে।

শনিবার ঘটনার পর পরেই পুলিশ চালক বাহাদুর আলীকে গ্রেপ্তার করার পর এ ঘটনাটি জানা যায়। রোববার পুলিশ তাকে আদালতে হাজির করে একদিনের রিমান্ডে নিয়েছে।

জানা গেছে, অসুস্থ অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে দেখতে গ্রামের বাড়িতে যাওয়া জন্য খেয়া পরিবহনের একটি বাসে ওঠেন। বাসটি বনানীর বিমানবন্দর সড়কে যাওয়ার পর হারুন বলেছিলেন, 'ভাই, আমি ইফতার করব। বাসটি একটু থামান।' এরপরও চালক বাসটি চালিয়ে যাচ্ছিলেন। ততক্ষণে হারুন নেমে বাসের সিট ছেড়ে দরজা পর্যন্ত চলে যান। তখন হেলপার চলন্ত গাড়ি থেকেই তাকে ধাক্কা দিয়ে নামিয়ে দেয়। এরপর সেই বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে নিহত হন হারুন।

পুলিশ পক্ষ থেকে জানানো, ওই দিন সন্ধ্যায় বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় একজন মারা যাওয়ার খবর শুনে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। তখন প্রত্যক্ষদর্শীরা পুলিশকে জানান, চলন্ত বাস থেকে ওই ব্যক্তিকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়া হয়। এরপর সেই বাসটিই তাকে পিষে দিয়ে চলে যায়। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে পরিচয় শনাক্তের পর স্বজনদের খবর দেয়। এ ঘটনায় নিহতের মা রানী বেগম বনানী থানায় চালক ও হেলপারের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

এ ব্যাপারে বনানী থানার এসআই রাজিবুল হাসান বলেন, ‘আশপাশের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে তারা জানতে পারি, বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে যাত্রী হারুনকে মেরে ফেলা হয়েছে। ঘটনার ভয়াবহতা আঁচ করতে পেরে তিনি খিলক্ষেত এলাকা থেকে বাসটি চালকসহ আটক করেন। এরপর চালককে জিজ্ঞাসাবাদ করলে ঘটনা বেরিয়ে আসে।’

তিনি আরো বলেন, চালক জানিয়েছে ইফতার করার জন্য হারুন বাসটি থামানোর অনুরোধ করেছিলেন। তিনি বাসটি একটু থামাতেই হেলপার আলম তাকে ধাক্কা দিয়ে নামিয়ে দেয়। এতে চাকার নিচে পড়ে যান ওই যাত্রী। হেলপার পলাতক থাকায় তার অবস্থান শনাক্তে চালককে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

নিহতের আত্মীয় মনির হোসেন বলেন, ‘হারুন তার পরিবার নিয়ে কেরানীগঞ্জের আটিপাড়ায় থাকতেন। কয়েক মাস আগে তিনি বিয়ে করেন। স্ত্রী অন্তঃসত্ত্বা হলে তাকে গ্রামের বাড়ি পাঠিয়ে দেন। সেখানে অসুস্থ স্ত্রীকে দেখতে যাওয়ার পথেই বাসচালক তাকে পিষে মারল।

বাংলা/এনএস

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

সড়ক দুর্ঘটনা বনানী

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0175 seconds.