• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ৩০ এপ্রিল ২০১৯ ১৭:১৮:০৮
  • ৩০ এপ্রিল ২০১৯ ২১:৫৮:০৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

অনিয়মের প্রতিবাদে চলচ্চিত্র অনুদান বোর্ড থেকে পদত্যাগ

ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র চুড়ান্ত অনুদান কমিটি থেকে পদত্যাগ করলেন চারজন সদস্য। পদত্যাগ করা চার সদস্য হলেন মামুনুর রশীদ, নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু, মোরশেদুল ইসলাম ও ড. মতিন রহমান। মূলত ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের চলচ্চিত্র অনুদান প্রক্রিয়ায় অনিয়মের অভিযোগ তুলে তারা পদত্যাগ করেন।

রবিবার তারা তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ’র নিকট একটি পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন।

সেই পত্রটিতে বলা হয়- ‘৭ এপ্রিল ২০১৯ তারিখে আপনার (তথ্যমন্ত্রী) সভাপতিত্বে এবং সচিব মহোদয়ের উপস্থিতিতে ২০১৮-১৯ সালের জন্য গঠিত চলচ্চিত্র অনুদান কমিটির সভায় ২টি পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রামাণ্যচিত্র ও একটি শিশুতোষসহ ৫টি পূর্ণদৈর্ঘ্য কাহিনিচিত্রকে অনুদান দেওয়ার বিষয়ে সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত হয়।’

‘কিন্তু আমরা বিস্ময়ের সঙ্গে লক্ষ্য করলাম যে, অনুদান কমিটির সদস্যদের সঙ্গে কোনোরকমে আলোচনা না করে সম্পূর্ণভাবে মন্ত্রণালয়ের একক সিদ্ধান্তে সেই সভার সিদ্ধান্তকে পরিবর্তন করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। অনুদান কমিটির সদস্য হিসেবে আমাদের আগেও কাজ করার সুযোগ হয়েছে, কিন্তু এ ধরনের দুঃখজনক অভিজ্ঞতা আর কখনো হয়নি।’

‘এমতাবস্থায় অনুদান কমিটির সদস্য হিসেবে থাকা আমাদের জন্য সম্মানজনক ও যুক্তিযুক্ত মনে না হওয়ায় আমরা চলচ্চিত্র অনুদান কমিটি থেকে পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। অতএব, এই পত্রটিকে আমাদের পদত্যাগপত্র হিসেবে গণ্য করে তা অবিলম্বে কার্যকর করার জন্য আপনাকে অনুরোধ জানাচ্ছি।’

অতিসম্প্রতি তথ্য মন্ত্রণালয় এক প্রজ্ঞাপন জারি করেন। সেখানে একটি শিশুতোষ চলচ্চিত্র, দুটি পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রামাণ্যচিত্র এবং ৫টি পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রকে অনুদান দেয়ার ঘোষণা করা হয়। ওই তালিকা প্রকাশের পরেই অনিয়মের অভিযোগ ওঠে। আর ঘটনার জের ধরে পদত্যাগের ঘটনা ঘটেছে।

এর আগে ২৫ এপ্রিল তথ্যমন্ত্রীর কাছে লিখিতভাবে অনিয়মের অভিযোগ করেন ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন। চিটিতে তিনি উল্লেখ করেন, তার প্রামাণ্যচিত্র ‘হীরালাল সেন’ সকল শাখায় সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়ার পরেও তিনি অনুদান পাননি। এছাড়া অন্যান্য বিভাগের ক্ষেত্রেও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।

পূর্ণদৈর্ঘ্য বিভাগে সারাহ বেগম কবরীর ‘এই তুমি সেই তুমি’, মীর সাব্বিরের ‘রাত জাগা ফুল’, আকরাম খানের ‘বিধবাদের কথা’, হোসেন মোবারক রুমীর ‘অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া’ এবং হৃদি হকের ‘১৯৭১ সেই সব দিন’।  শিশুতোষ বিভাগে আবু রায়হান মো. জুয়েলের ‘নসু ডাকাত কুপোকাত’। প্রামাণ্যচিত্রের মধ্যে রয়েছে হুমায়রা বিলকিসের ‘বিলকিস এবং বিলকিস’ ও পূরবী মতিনের ‘মেলাঘর’। উল্লিখিত চলচ্চিত্র গুলো অনুদান পায়।

বাংলা/এনএস

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0176 seconds.