• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ২৯ এপ্রিল ২০১৯ ২৩:১০:০৮
  • ২৯ এপ্রিল ২০১৯ ২৩:১০:০৮
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

এমপিদের সরকারি ফ্ল্যাটে অন্য কেউ থাকলে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন

ছবি : সংগৃহীত

জাতীয় সংসদ এলাকাতে অবস্থিত সংসদ সদস্য ভবনের ফ্ল্যাট `ন্যাম‘ ভবনে এমপি বা তার পরিবারের সদস্যদের বদলে অন্য কেউ বসবাসের প্রমাণ পেলে তাৎক্ষণিকভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার সুপারিশ করেছে সংসদ কমিটি। সংসদ সদস্যদের আবাসন, ন্যাম ভবনের নিরাপত্তা, অফিস বরাদ্দসহ নানা বিষয় তদারকি করা এ কমিটির কাজ।

সোমবার সংসদ ভবনে কমিটির বৈঠকে ওই সুপারিশ করা হয় বলে সংসদ সচিবালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিত এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়।

মূলত অনেক সংসদ সদস্য বরাদ্দ পাওয়া ফ্ল্যাটে নিজে না থেকে ব্যক্তিগত কর্মকর্তা বা ড্রাইভারকে থাকতে দেয়ার ব খবর গণমাধ্যমে এসেছে বিভিন্ন সময়ে। এমনকি দশম সংসদে এরকম কয়েকজন এমপিকে চিঠিও দেয়া হয়েছিল সেই সময়ের সংসদ কমিটির পক্ষ থেকে।

এছাড়াও ওই বৈঠকে জাতীয় সংসদের বন্ধ থাকা ৭ নম্বর গেইট (বিমান মোড়) খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। তবে সেই গেইট দিয়ে শুধুমাত্র সংসদ সদস্য, উপমন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী এবং মন্ত্রী পদমর্যাদার ব্যক্তিরা চলাচল করতে পারে, এই মর্মে সুপারিশ করা হয়।

একই সাথে সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্যদের জন্য অফিস কক্ষ বরাদ্দ এবং নাখালপাড়ার ১, ২ ও ৩ নম্বর সংসদ–সদস্য ভবন সংসদ সদস্যদের জন্য রেখে বাকী ৪, ৫, ৬ ও ৭ নম্বর ভবনের প্রশাসনিক নিয়ন্ত্রণ অস্থায়ী ভিত্তিতে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সের (এসএসএফ) কাছে হস্তান্তর করার সুপারিশ করা হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়েছে, সংসদ-সদস্য ভবনে একটি মসজিদ নির্মাণের সম্ভাব্যতা যাচাই, বন্ধের সময়েও সংসদ সদস্যদের ভবনে পরিচ্ছন্নতাকর্মী অব্যাহত রাখা, হুইপদের বাসভবনগুলো যথাযথভাবে সংস্কার করা এবং সংসদের সব স্থানে একই ধরনের বৈদুতিক বাতি লাগানোর সুপারিশ করা হয়।

এছাড়াও মানিক মিয়া অ্যাভিনিউ ও নাখালপাড়ার সংসদ সদস্য ভবনের ফ্ল্যাট এবং শেরেবাংলা নগরের এমপি হোস্টেলের নিরাপত্তার বিষয়ে একটি প্রতিবেদন দেয়ার জন্য নূর মোহাম্মদের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি উপ-কমিটি গঠন করা হয় এদিন। উপ-কমিটির বাকী দুই সদস্য হলেন আবু জাহির এবং শওকত হাচানুর রহমান (রিমন)।

বাংলা/এনএস

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0171 seconds.