• বিদেশ ডেস্ক
  • ২৬ এপ্রিল ২০১৯ ২২:২০:৩৮
  • ২৬ এপ্রিল ২০১৯ ২২:২০:৩৮
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

বিদ্বেষ ছড়াতে ব্যর্থ ক্রাইস্টচার্চ মসজিদের হামলাকারী

ছবি : সংগৃহীত

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে ঢুকে নির্বিচারে গুলি করে নিরীহ মুসল্লিদের হত্যা করা ব্যক্তি তার মিশন পূর্ণ করতে ব্যর্থ হয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ যুবরাজ প্রিন্স উইলিয়াম।

শুক্রবার প্রিন্স উইলিয়াম ক্রাইস্টচার্চের আল নূর এবং লিনউড মসজিদে যান।  সেখানে তিনি মুসল্লিদের সঙ্গে কথাবার্তা বলেন।  তিনি জানান, হামলাকারী অস্ট্রেলীয় নাগরিক ব্রেনটন ট্যারান্ট মূলত বিদ্বেষ ছড়িয়ে দেয়ার জন্য জঘন্য এই হত্যাকাণ্ড করেছে। কিন্তু তার সেই উদ্দেশ্য ব্যর্থ হয়েছে।  

ডিউক অব ক্যাম্ব্রিজ উইলিয়াম আল নূর মসজিদে ১৬০ জন মুসল্লির সঙ্গে সাক্ষাত করেন।  এদের মধ্যে ১৫ মার্চের ভয়াবহ ওই হামলায় বন্দুকের গুলি থেকে বেঁচে যাওয়ারা যেমন ছিলেন তেমনি মুসলিম নেতারাও ছিলেন।  এছাড়া নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্নও উইলিয়ামের সঙ্গে ছিলেন।  

ব্রিটিশ যুবরাজ বলেন, ‘এই রুমে মর্মান্তিক এক ট্র্যাজেডির ঘটনা ঘটেছে।  একজন সন্ত্রাসী এখানে বিভক্তি এবং বিদ্বেষের বীজ রোপণ করতে চেয়েছিল।  সে ভেবেছিল ভিন্নভাবে এই স্থানটিকে সে সংজ্ঞায়িত করতে পারবে। আমি এখানে আপনাদের সাহায্য করতে এসেছি যেন আপনারা বিশ্ববাসীকে দেখাতে পারেন সে ব্যর্থ হয়েছে। ’

নিউজিল্যাণ্ডের জনগণ প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্নের নেতৃত্বে ইতিবাচকভাবে এই পরিস্থিতি সামাল দিয়েছেন। প্রিন্স উইলিয়াম এই বিষয়টির প্রশংসা করেন।  

তিনি বলেন, ‘১৫ মার্চ আমি যে সংবাদ শুনেছিলাম তা প্রথমে বিশ্বাসই করতে পারিনি। যে দেশ বিভক্তি এবং ক্রোধের বৈশ্বিক ট্রেন্ড প্রতিরোধ করে এসেছে এরকম একটি দেশে এই ঘটনা ঘটেছে। ’ পাশাপাশি তিনি জানান, সন্ত্রাসী ব্যক্তি যেরকম চেয়েছিল নিউজিল্যান্ড সেরকম ভীতি এবং অবিশ্বাসের জনপদে পরিণত হয়নি।

প্রিন্স উইলিয়াম বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের অন্য পরিকল্পনা ছিল।  আল নূর এবং লিনউড মসজিদের মুসল্লিদেরও অন্যরকম পরিকল্পনা ছিল।  তীব্র যন্ত্রণাময় ওই সময়ে আপনারা উঠে দাঁড়িয়েছেন এবং তা একসঙ্গেই করেছেন। ’

অবশ্য মসজিদে হামলার পর শোকাচ্ছন্ন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন  প্রতিজ্ঞা করেছিলেন তিনি বন্দুকধারী হামলাকারীর নাম কখনো মুখে আনবেন না। কারণ হামলাকারী ব্যক্তি তার প্রচার চেয়েছিল।  প্রিন্স উইলিয়ামও তার বক্তৃতায় ব্রেনটন ট্যারান্টের নাম একবারও উল্লেখ করেননি।  বরং তাকে সন্ত্রাসী বলে অভিহিত করেছেন।    

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার দুইদিনের সফরে নিউজিল্যান্ড যান প্রিন্স উইলিয়াম।  তিনি ব্রিটেনের রাণী এলিজাবেথের প্রতিনিধি হয়ে দেশটি সফর করছেন।  নিউজিল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়ায় রাণী এলিজাবেথকে রাষ্ট্রের প্রধান হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

বাংলা/এফকে

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0171 seconds.