• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ১৩ এপ্রিল ২০১৯ ১৯:৩৩:০০
  • ১৩ এপ্রিল ২০১৯ ১৯:৩৩:০০
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

ঢাবিতে মঞ্চে আগুন, দোলাচলে বৈশাখী কনসার্ট

ছবি : সংগৃহীত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মলচত্বরে ডাকসু ও ও ঢাবি ছাত্রলীগের সহযোগিতায় আয়োজিত লোকসঙ্গীত ও পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে দুই দিনব্যাপী কনসার্টস্থলে ফের আগুন দিয়েছেন দুর্বৃত্তরা। এসময় তাদের মাথায় হেলমেট ছিল বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন।

শুক্রবার রাতে আগুন দেওয়ার পর কনসার্ট আয়োজকদের পক্ষ থেকে যখন ফের সবকিছু ঠিকঠাক করার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছিল ঠিক তখনই দ্বিতীয় দফায় আগুন লাগিয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা। বাইক নিয়ে এসে পেট্রল ঢেলে ফিল্মি স্টাইলে আগুন দেয় তারা। পরে উপস্থিত সকলে তা নিভিয়ে ফেলে।

এদিকে কনসার্টে ‘অংশ নেওয়া না নেওয়া’র দোলাচলে ইতোমধ্যেই নিজেদের সব মালামাল গুছিয়ে নিয়েছে আয়োজনের প্রধান স্পন্সর মোজো। আজ সকালে নিরাপত্তার খাতিরে ব্যানার-ফেস্টুনসহ সংক্রান্ত সবকিছু নিয়ে যান তারা। যদিও কনসার্ট না হওয়ার গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়েছে আয়োজক সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

তবে শনিবার সন্ধ্যেয় গণমাধ্যমের কাছে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে মোজো জানায়, অনিবার্য কারণবশত বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ উপলক্ষ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মল চত্বরে নির্ধারিত মোজো জন্মদিন উৎসব এবং বৈশাখী কনসার্ট স্থগিত করা হয়েছে। মোজোর সকল শুভাকাঙ্খী ও শুভানুধ্যায়ীর কাছে মোজো পরিবারের পক্ষ থেকে গভীর ভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি। এই অনুষ্ঠানটি অতি নিকট ভবিষ্যতে আয়োজন করার আশা রাখি। অনুষ্ঠানের স্থান ও তারিখ আগামীতে ঘোষণা করা হবে। আপনাদের অব্যাহত ভালোবাসা মোজোর ১৩ বছরের পথচলায় অনুপ্রেরণা হয়ে থাকবে। সবাইকে বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ ও মোজো জন্মদিনের শুভেচ্ছা।

শুক্রবার রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মলচত্বরে ডাকসু ও ঢাবি ছাত্রলীগের সহযোগিতায় আয়োজিত লোকসঙ্গীত ও পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে দুই দিনব্যাপী কনসার্টস্থলে হামলা ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগ উঠেছে। কনসার্টে হামলার জেরে বিক্ষিপ্তি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। ঢাকা কলেজে সংগঠিত ওই হামলায় অন্তত ৭ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। শুক্রবার দিবাগত রাত ২টার দিকে ওই ঘটনা ঘটে।

এদিকে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরীর কর্মীরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন প্রতিপক্ষ গ্রুপের নেতাকর্মীরা। তবে ছাত্রলীগের সভাপতি শোভন জানিয়েছেন তিনি ঘটনার ব্যাপারে কিছু জানেন না। কারা হামলা চালিয়েছে তা তিনি বলতে পারছেন না। বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ করেছেন ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন। তিনি বলেন, এটাকে পুজি করে প্রতিটি হল ও হলের বাইরে সমস্যার সৃষ্টি করা হচ্ছে। বিভিন্ন হলে আমার কর্মীদের মারধর করা হচ্ছে।

ঢাবি শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস অভিযোগ করে বলেন, ছাত্রলীগ সভাপতি শোভনের কর্মীরা ওই হামলা চালিয়েছে। যারা পহেলা বৈশাখের কনসার্টে বাধা দেয়, তারা অন্তত স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি হতে পারে না বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

ডাকসুর জিএস ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, ‌‌‘যারাই এ কাজ করেছে, তাদের বিচার করা হবে। তাদেরকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করতে হবে বলেও দাবি করেন তিনি।

ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর বলেন, প্রশাসন চাইলে ২৪ ঘন্টার মধ্যে এ ঘটনার বিচার করতে পারে। এ ঘটনার বিচার আমরা চাই।

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

কনসার্ট ঢাবি আগুন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0190 seconds.