• বিদেশ ডেস্ক
  • ১২ এপ্রিল ২০১৯ ২১:৫৭:২০
  • ১২ এপ্রিল ২০১৯ ২১:৫৭:২০
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

যুদ্ধ থামাতে নেতাদের পায়ে চুমু খেলেন পোপ

চুম্বনরত অবস্থায় পোপ ফ্রান্সিস। ছবি : দ্য নিউইয়র্ক টাইমস থেকে নেয়া

খ্রীষ্টান ক্যাথলিকদের সবোর্চ্চ ধর্মীয় নেতা পোপ ফ্রান্সিস অভিনবভাবে শান্তির বার্তা দিলেন দক্ষিণ সুদানের নেতাদের। তিনি এ সময় মাটিতে হাঁটু গেড়ে বসে দেশটির নেতাদের পায়ে চুম্মন করেন। ভ্যাটিকানসিটিতে আয়োজিত দুই দিনের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে এ ঘটনা ঘটে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ভিত্তিক সংবাদ সংস্থা দ্য নিউইয়র্ক টাইমস এমন খবর প্রকাশ করে।

বিশ্বের সবচেয়ে অসুখী ও গৃহযুদ্ধে জর্জরিত দক্ষিণ সুদানে নতুন করে যুদ্ধ এড়াতে দেশটির নেতাদের পায়ে চুমু খান তিনি। পোপের মতো সম্মানজনক ব্যক্তি কোনো দেশের রাজনৈতিক নেতাদের উদ্দেশ্যে এই প্রথম এমন কাজ করেন বলে খবরে উল্লেখ করা হয়।

পৃথিবীর ক্ষুদ্রতম রাষ্ট্রটির দুই দিনের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে শেষদিন বৃহস্পতিবার দক্ষিণ সুদানের প্রেসিডেন্ট, বিরোধী দলের নেতা এবং বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্টের পায়ে পোপ এভাবে চুমু খান।

দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট রেবেকা ন্যানন্দেং গারং পোপের এ ঘটনায় আপ্লুত হয়ে বলেন, ‘কোনো দিন কাউকে এমন করতে দেখিনি। আমি হতভম্ব হয়েছি, কেঁদেছি।’

এ সময় পোপ নেতাদের বলেন, ‘ভাই হিসেবে আপনাদের শান্ত থাকতে বলছি। হৃদয় থেকে বলছি সামনে এগিয়ে যান।’

উল্লেখ্য, সুদানের সঙ্গে দুই দশক ধরে রক্তাক্ত লড়াই শেষে ২০১১ সালের ৯ জুলাই স্বাধীনতা লাভ করে দক্ষিণ সুদান। যাকে পৃথিবীর সবচেয়ে নবীন রাষ্ট্র বলা হয়। ২০১৩ সালে দেশটির প্রেসিডেন্ট সালভা কির ও তৎকালীন ভাইস প্রেসিডেন্ট রিয়েক মাচারের মধ্যকার দ্বন্দ্ব নিয়ন্ত্রণের বাইরে গিয়ে সেনাবাহিনীর মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে।

যার ফলে সেনাবাহিনী আবার গোষ্ঠীতে গোষ্ঠীতে বিভক্ত হয়ে পড়ে। জুবায় যে গোষ্ঠীকেন্দ্রিক হত্যা শুরু হয় তা দ্রুত দেশের অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে পড়ে। এজন্য প্রায় ৪ লাখ মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। ফলশ্রুতিতে ২০১৫ সালের আগস্টে দুজনের মধ্যে আপস হয়। তবে, শুরুতে ব্যাপারটা অসম্ভব ছিল, কারণ তারা দুজনেই পরস্পরকে অত্যন্ত ঘৃণা করেন।

বাংলা/এনএস

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0179 seconds.