• ১১ এপ্রিল ২০১৯ ২২:৫৩:১৮
  • ১১ এপ্রিল ২০১৯ ২২:৫৩:১৮
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

প্রয়োজনে হলে অতিথি রাখতে চান রাবি ছাত্রীরা

ছবি : সংগৃহীত

রাবি প্রতিনিধি :

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রীদের আবাসিক হলের বিভিন্ন নিয়মকানুন নিয়ে প্রশ্ন তুলে তা বাতিলের দাবি জানিয়েছেন ছাত্র-ছাত্রীরা। হলে আইনের নামে বৈষম্য ও রীতিমত অত্যাচার করা হচ্ছে অভিযোগ করে প্রয়োজনে অতিথি রাখতে চান তারা।

বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ছাত্রীদের হলে থাকতে কঠোর নিয়ম মেনে চলতে হয়। হলে অতিথি হিসেবে কেবল মা থাকতে পারেন। এর বাইরে কেউ অতিথি রাখলে তাকে অপমান-লাঞ্ছনার শিকার হতে হয়। অন্যদিকে সান্ধ্য আইনে সন্ধ্যার মধ্যে হলে ঢুকতে বাধ্য হয় ছাত্রীদের। এমনকি সন্ধ্যার পর প্রয়োজন হলেও এক হলের ছাত্রী অন্য হলে যাতায়াত করতেও পারেন না।

যদিও ছাত্রদের হলে এমন কোনো বিধিনিষেধ কার্যকর নেই। ২৪ ঘণ্টা হলগেট খোলা থাকে। অতিথি কিংবা বহিরাগত সবারই চলে অবাধ যাতায়াত।

বিশ্ববিদ্যালয়ের এই নিয়মকে ‘বৈষম্য’ ও ‘অনিয়ম’ উল্লেখ করে বাতিলের দাবিতে আন্দোলন করছেন ছাত্র-ছাত্রীরা।

সবশেষ রহমতুন্নেসা হলের এক ছাত্রীর বোনকে বের করে দেয়া এবং তাকে অপমান করাকে কেন্দ্র করে ক্ষুব্ধ হন ছাত্র-ছাত্রীরা। অন্যদিকে কর্তৃপক্ষ বলছেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রদত্ত এই আইন ছাত্র-ছাত্রীদের ভালোর জন্যই করা হয়েছে। এরই প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার দুপুরে গ্রন্থাগারের সামনে দ্বিতীয় দিনের মত মানববন্ধন করেন তারা।

মানববন্ধনে রোকেয়া হলের আবাসিক শিক্ষার্থী শাকিলা খাতুন বলেন, ‘মেয়েরা রাতের বেলা অসুস্থ হলে মেডিকেলে নিতে শিক্ষকদের সুপারিশ নিতে হয়! যদি রাজশাহী মেডিকেলে যেতে হয় তাহলে ব্যক্তিগত উদ্যোগে যেতে হয়, ছেলেদের হলের বেলায় যেখানে অন্য নিয়ম। ক্যাম্পাসে কোনো মেয়ে লাঞ্চিত হলে, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে উল্টো প্রশ্ন করা হয় যে, আপনি ওখানে কেন গিয়েছিলেন!’

রহমতুন্নেসা হলের আবাসিক শিক্ষার্থী ইসমত আরা জেরিন বলেন, ‘ছাত্রী হলে শুধু মাকে অতিথি হিসেবে রাখার নিয়ম করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। কিন্তু অতিথি বলতে কি শুুধু মাকে বোঝায়? আমার মা যদি রাজশাহী আসেন, ছোট বোন থাকলে কি তাকে বাসায় রেখে আসবেন? এখানে আপন বোনকেও রাখতে দেয়া হয় না। এখানে সন্ধ্যার পর এক হলের মেয়েদের অন্য হলে যেতে দেয়া হয় না। এটা কী ধরনের নিয়ম? আমরা এই নিয়মের অবসান চাই।’

ছাত্রীদের আন্দোলনে একাত্মতা ঘোষণা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ ও ছাত্র ফেডারেশন।  ছাত্রীদের যৌক্তিক দাবিগুলো মেনে নিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি গোলাম কিবরিয়া। দাবিগুলো আদায় না হওয়া পর্যন্ত ছাত্রলীগ মাঠ ছাড়বে না বলেও ঘোষণা দেন তিনি।

আগামী ১৫ এপ্রিল গ্রন্থাগারের সামনে গণস্বাক্ষর কর্মসূচি পালন করা হবে বলে মানববন্ধনে ঘোষণা দেয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0340 seconds.