• ১০ এপ্রিল ২০১৯ ১৭:৫৭:১৪
  • ১০ এপ্রিল ২০১৯ ২২:১১:১৩
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

লাক্সও একটু ধুয়ে দিচ্ছে দামে

১৫০ গ্রাম ওজনের সাবানে চার টাকা ১৫ পয়সা বেশি নিচ্ছে ইউনিলিভার। ছবি : বাংলা

আফসানা চৌধুরী (ছদ্মনাম) একটি বহুজািতিক প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করেন। ছুটির দিন ছাড়া হাতে সময় একদমই থাকে না। তাই মাস শেষে কোনো সুপারশপ থেকেই সারা মাসের নিত্যপ্রয়োজনীয় কেনাকাটা সারেন। 

গত মাসের শেষের দিকের কোন এক সকালে অফিসে যাওয়ার প্রস্তুতি হিসেবে আফসানা ওয়াশরুমে গিয়ে সোপ কেসের দিকে তাকিয়ে দেখলেন সাবান শেষ হয়ে গেছে। কিন্তু আফসানা কখনোই সাবান ছাড়া গোসল করেন না। অগত্যা তাই কাজের বুয়াকে বললেন দ্রুত নিচে গিয়ে অন্তত একটা সাবান আনতে। কাজের বুয়া তাই তড়িঘড়ি করে নিচের দোকান থেকে একটি ৩৫ মিলি লাক্স সাবান কিনে আনেন। দাম ১০ টাকা। 

সাবান হাতে নিয়ে থ হয়ে গেলেন আফসানা। কারণ এই প্রথম দশ টাকা দামের সাবান ব্যবহার করলেও তিনি সব সময় লাক্সে ব্রান্ডের বড় সাবানই ব্যবহার করেন। তাই লাক্স সাবান সম্পর্কে তার অভিজ্ঞতা নতুন নয়। লাক্স সাবানের পরিমাণ অনুযায়ী দাম তার জানা। 

আফসানা এর আগে ১০০ ও ১৫০ গ্রাম ওজনের লাক্স ব্যবহার করেছেন। এগুলার দাম যথাক্রমে ৩৪ ও ৪৭ টাকা। অথচ তার হিসাব অনুযায়ী এসবের দাম আরো কম হওয়ার কথা। ৩৫ গ্রামের দাম ১০ টাকা হলে ১০০ গ্রামের দাম হওয়ার কথা ২৮ টাকার কিছু উপরে। কিন্তু কোম্পানির নির্ধারিত মূল্য ৩৪ টাকা। প্রায় সাড়ে পাঁচ টাকা বেশি নিচ্ছে।

হিসাব কষলে করলে দেখা যায়, ৩৫ গ্রামের দাম ১০ টাকা হলে ১ গ্রামের দাম আসবে ২৮ পয়সা। সে হিসেবে ১০০ গ্রামের দাম হওয়ার কথা ২৮ টাকা ৫৭ পয়সা। আর ১৫০ গ্রাম ওজনের সাবানটির দাম আসার কথা ৪২ টাকা ৮৫ পয়সা। কিন্তু ইউনিলিভার দাম নির্ধারন করেছে ৪৭ টাকা। চার টাকা ১৫ পয়সা বেশি নিচ্ছে।

আফসানা বলেন, ‘ভেবেছিলাম পরিমাণে বড়টা নিলে দাম একটু সাশ্রয় হয়। কিন্তু এখন তো দেখছি উল্টো।’

বাজার ঘুরে লাক্সের প্রতিটি মডেলের সাবানের বিভিন্ন সাইজের দামে একইভাবে দাম বেশি নেওয়ার প্রমাণ পাওয়া যায়।

এর আগে ইউনিলিভারের পণ্য ফেয়ার এ্যান্ড লাভলী, সানসিল্ক শ্যাম্পু, ক্লিয়ার শ্যাম্পু ও ক্লোজআপ পেস্টেও একই রকম প্রতারণা ধরা পড়ে। তা নিয়ে বাংলা’য়  প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয়েছে- গ্রামে গ্রামে ঠকাচ্ছে ফেয়ার এ্যান্ড লাভলীশ্যাম্পুতেও পুকুরচুরি করছে ইউনিলিভারক্লোজআপে দামে ঠকানোর গল্প

১৮০ মি.লি.’র বোতলজাত সানসিল্ক শ্যাম্পুতে ইউনিলিভার প্রতি বেতালে বেশি নিচ্ছে ১০৫ টাকা।  ৩৭৫ মি. লি.'র প্রতি বোতলে বেশি নিচ্ছে ১৬৫ টাকা।

২৫ গ্রামের ফেয়ার এ্যান্ড লাভলীতে ইউনিলিভার বেশি নিচ্ছে ১৮ টাকা ৪৪ পয়সা। ৫০ গ্রাম ফেয়ার এ্যান্ড লাভলীতে ক্রেতাকে বেশি দিতে হচ্ছে প্রায় ৩২ টাকা।

একই ভাবে প্রতি গ্রামের দর বের করে হিসাব করলে  ৪৫ গ্রাম ক্লোজআপ পেস্টের দাম হবার কথা ২৭ টাকা। সেখানে কোম্পানি বাড়তি ১৩ টাকা যোগ করে নিচ্ছে ৪০ টাকা। ১০০ গ্রামের টিউবে বেশি নিচ্ছে ২০ টাকা, আর ১৪৫ গ্রামের টিউবে বেশি নিচ্ছে ২৩ টাকা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ভোক্তাদের স্বার্থ দেখভালের প্রতিষ্ঠান কনজ্যুমার এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি গোলাম রহমান বাংলা’কে বলন, ‘মূলত মোড়কের জন্য বড় পণ্যে দামের এমন গড়পড়তা হয়েছে। পণ্য যখন পরিমাণে বেশি হয় তখন মোড়ক/প্যাকিংয়ের ব্যাপারটাও উন্নতভাবেই করতে হয়। তাই এমনটা হয়েছে। এটা ভাবার মতো তেমন কিছু না।’

তবে মোড়ক তৈরি ও ছাপানোর কাজে যুক্ত ব্যক্তিরা বলছেন, মোড়কের জন্য এতো বেশি টাকা নেওয়ার প্রশ্ন নেই। কারণ এটির খরচ বেশ কম হওয়ার কথা। কিন্তু সেটা বেশি পরিমাণে পণ্য বিক্রির কারণে হওয়া বাড়তি মুনাফা থেকে সমন্বয় করা উচিত। 

তাদের ভাষ্য, মোড়কের জন্য তার বেশি নিচ্ছে না, সেটি স্পষ্ট। কারণ, ১০০ গ্রামের মোড়ক ১৫০ গ্রামের মোড়কের চেয়ে তুলনামূলকভাবে ছোট। কিন্তু ছোট সাইজটিকে দাম বেশি নিচ্ছে সাড়ে পাঁচ টাকা। আর বড় মোড়কে বড় সাইজের সাবানে দাম বেশি নিচ্ছে প্রায় চার টাকা। কিন্তু মোড়ক তৈরির হিসাব করলে তো এমনটি হবার কথা নয়।

এসব বিষয়ে ইউনিলিভারের মার্কেটিং ম্যানেজার আব্দুল্লাহ আল মুবিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি এখন কিছুই বলতে পারবো না।’

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

ইউনিলিভার লাক্স

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0191 seconds.