• বিনোদন প্রতিবেদক
  • ৩০ মার্চ ২০১৯ ১২:৫৬:৩২
  • ৩০ মার্চ ২০১৯ ১২:৫৬:৩২
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

আত্মবিশ্বাস ছিল আমি পারব: নাবিলা

অভিনেত্রী নাবিলা ইসলাম। ছবি : সংগৃহীত

ছোট পর্দার দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী নাবিলা ইসলাম। ক্যারিয়ারের অল্প সময়ে দর্শক-নির্মাতাদের কাছে কাজের মাধ্যমে নিজের গ্রহণযোগ্যতা তৈরি করেছেন। ২০১৪ সালে একটি টেলিছবিতে অভিনয়ের মধ্যে দিয়ে মিডিয়ায় পথচলা শুরু করেন।

তবে বর্তমানে একক ও ধারাবাহিক দুটোতেই সমান তালে ব্যস্ত রেখেছেন নিজেকে। সমসাময়িক ব্যস্ততা ও অন্যান্য কাজ প্রসঙ্গে বাংলা’র সঙ্গে কথা বলেছেন নাবিলা ইসলাম। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন মিঠুন আল মামুন

 

বাংলা: কোন নাটকের শুটিং করছেন?

নাবিলা ইসলাম: অরণ্য আনোয়ারের রচনা ও পরিচালনায় ধারাবাহিক নাটক ‘ফুল এইচডি’ এর শুটিং করছি। দারুণ একটি নাটক। সবাই আনন্দ নিয়ে অভিনয় করছি এতে।

বাংলা: বর্তমান ব্যস্ততা কী নিয়ে?

নাবিলা ইসলাম: বর্তমানে ঈদের কাজ নিয়ে ব্যস্তা আছি। এরইমধ্যে, সকাল আনন্দের পরিচালনায় দু'টি ছয় পর্বের ধারাবাহিকের শুটিং শেষ করলাম। দু'টি ধারাবাহিকের দৃশ্যধারণ হয়েছে নেপালে। তারপর দীপু হাজরা'র পরিচালনায় ‌‘মিরাজ তুই মরিসন্যে ক্যা’ নামের একটি নাটকের শুটিং শেষ করেছি। হানিফ পায়োয়ানের রচনা ও পরিচালনায় ‘আমি একজন ভদ্রলোক’ নামের একটি নাটকের কাজ শেষ করলাম। আরো কিছু স্ক্রিপ্ট নিয়ে কথা হচ্ছে ঈদের কাজের জন্য। আর নিয়মিত পাঁচটি ধারাবাহিকে অভিনয় করছি। শামীম জামানের পরিচালনায় ‘চাটাম ঘর’, মাসুদ সেজান পরিচালিত ‘খেলোয়ার’, সাগর জাহান পরিচালিত ‘টি-টুয়ান্টি’, নজরুল ইসলাম রাজু পরিচালিত ‘ঘরে বাইরে’, অরণ্য আনোয়ার পরিচালিত ‘ফুল এইচডি’, এই পাঁচটি ধারাবাহিক নাটক নিয়মিত প্রচার হচ্ছে। পাশাপাশি আমার উপস্থাপনায় দু'টি অনুষ্ঠানে প্রচার হচ্ছে। একটি হলো মাছরাঙা টেলিভিশনে ‘রুপকথা’ ও এশিয়ান টেলিভিশনে ‘স্টার অফ দ্যা ওয়ার্ল্ড’।

বাংলা: এত পেশা থাকতে অভিনয়ে আসার আগ্রহ কেন হলো?

নাবিলা ইসলাম: মা-বাবার আগ্রহে ছোটবেলা থেকে অভিনয়, কবিতা আবৃত্তি, গানের চর্চাসহ সংস্কৃতির নানা শাখার সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলাম। তবে অভিনয়ের প্রতি ছিল আলাদা দুর্বলতা। ২০১৪ সালের দিকে পরিচালক ওয়াহিদ তারেক ‘লিটল অ্যাঞ্জেল আইএম ডায়িং’ নামে একটি টেলিছবিতে অভিনয়ের জন্য প্রস্তাব দেন। ওয়াহিদ তারেক ভাইয়া ছিলেন আমার পূর্ব পরিচিত। যেহেতু অভিনয়ের প্রতি আমার দুর্বলতা ছিল তাই সুযোগটা আর হাতছাড়া করতে চাইনি। তাছাড়া নিজের প্রতি একটা আত্মবিশ্বাস ছিল আমি পারব। সেই থেকে শুরু।

বাংলা: অভিনয় নাকি উপস্থাপনা কোন কাজটা বেশি ভালো লাগে?

নাবিলা ইসলাম: অভিনয়ই আমার ভালো লাগা, ভালোবাসা। তবে উপস্থাপনা করতেও ভালো লাগে। শোবিজে আমার শুরুটা হয়েছিল নাটকে অভিনয়ের মাধ্যমে। তাই এই জায়গাতেই নিজের অবস্থানটা আরো পাকাপোক্ত করতে চাই। পুরোনোদের দলে নতুন নতুন শিল্পীরা যোগ হচ্ছেন। ভালো কাজ করার মধ্যে দিয়েই টিকে থাকতে চাই এখানে। সেই চেষ্টাই করে যাচ্ছি প্রতিনিয়ত। এছাড়া উপস্থাপনা করার মাধ্যমে আমার প্রতিভার বিকাশ ঘটাতে পারি এবং উপস্থাপনা করতে আমার বেশ ভালোও গালে।

বাংলা: নাটকের পাশাপাশি কোন চলচ্চিত্রের প্রস্তাব পেয়েছেন?

নাবিলা ইসলাম: চলচ্চিত্রের কাজের প্রস্তাব প্রতিনিয়ত পাচ্ছি। এখন পর্যন্ত তেমন কোনো গল্প পায়নি যেটাতে আমাকে বড়পর্দায় কাজের প্রতি আগ্রহী করে তুলবে। হুট-হাট বড়পর্দায় কাজ করতে চাই না। অনেক বেশি দায়িত্ববোধের জায়গা বড় পর্দা। কখনো যদি ভালো গল্প ও ভালো নির্মাতা এবং সবকিছু ব্যাটে বলে মিলে তবেই বড় পর্দায় কাজ করবো।

বাংলা: সম্প্রতি ওয়েব সিরিজ জোয়ার নিয়ে আপনার মতামত কি?

নাবিলা ইসলাম: এই মাধ্যমটা অবশ্যই ইতিবাচক। বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশেও এর প্রচলন শুরু হয়েছে। বিশ্ব যখন এগিয়ে চলছে তখন আমরা কেন পিছিয়ে থাকব। আমাদের দেশে এই মাধ্যমের কাজ শুরু হয়েছে অল্পদিন আগে। দিন দিন এই মাধ্যমটি বাংলাদেশেও জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। এখন অনেকেই এই মাধ্যমে কাজ করছেন।

বাংলা: ভবিষ্যত পরিকল্পনা কী?

নাবিলা ইসলাম: আমি আসলে ভবিষ্যৎ নিয়ে খুব বেশি ভাবি না। বর্তমানকেই বেশি প্রাধান্য দেই। তবে, ভালো কাজের মাধ্যমে অমর হতে চাই।

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0170 seconds.