• বিদেশ ডেস্ক
  • ১৪ মার্চ ২০১৯ ২১:৪০:৪৪
  • ১৪ মার্চ ২০১৯ ২১:৪০:৪৪
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

ইয়েমেন যুদ্ধে সৌদিকে মার্কিন সহায়তা স্থগিতের বিল পাশ

ছবি : সংগৃহীত

সৌদি আরব এবং আরব আমিরাতের নেতৃত্বাধীন ইয়েমেন যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক সহায়তা বন্ধের একটি বিল পাশ হয়েছে মার্কিন সিনেটে।  এই যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র সরাসরি অংশ না নিলেও অস্ত্র দিয়ে সহায়তা করছে যুদ্ধবাজ এই দুই দেশকে।   

বুধবার মার্কিন কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটে ৫৪-৪৬ ভোটে বিলটি পাস হয়।  ভারমন্টের ডেমোক্রেটিক সিনেটর বার্নি স্যান্ডার্স বলেন, ‘ইয়েমেনে যে ভয়াবহ যুদ্ধ হচ্ছে তার বিরুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নেয়ার এবং বিশ্বের অন্যতম দরিদ্র এই দেশের জনগণ যে ভয়ানক কষ্ট সহ্য করছে তা দূর করার সুযোগ আমাদের সামনে এসেছে। ’

কানেক্টিকাটের ডেমোক্রেটিক সিনেটর ক্রিস মার্ফি জানান, ইয়েমেনে কলেরা যে মহামারীরূপে ছড়িয়ে পড়েছে তার মূল কারণ সৌদি বোমা হামলায় দেশটির পানি সরবরাহ ব্যবস্থা পুরোপুরিই ভেঙ্গে পড়েছে।  ফলে সেখানে পরিস্কার পানি বলে কিছুই নেই।

এদিকে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন  দাতব্য সংস্থা জানায়, যুদ্ধের ফলে ইয়েমেনে ৬০ হাজারের বেশি বেসামরিক নাগরিক মারা গেছেন। এছাড়া ৮৫ হাজারের বেশি শিশুকে অনাহারে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিয়েছে ভয়াবহ এই যুদ্ধ।  

এর আগে ফেব্রুয়ারিতে কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে ইয়েমেন যুদ্ধে মার্কিন সহায়তা বন্ধ সংক্রান্ত বিলটির উপর ভোটাভুটি হয়।  সেসময় এটি  ২৪৮-১৭৭ ভোটে পাশ হয়েছিল।  সিনেটে পাশ হওয়ার পর বিলটি আবারো প্রতিনিধি পরিষদে পাঠানো হয়।  এখানে এটি দ্বিতীয়বার অনুমোদন পাবে বলে আশা করা হচ্ছে।  

ইউটাহর রিপাবলিকান সিনেটর মাইক লি বলেন, ‘আমরা এই যুদ্ধকে সামর্থন করছি এমনকি কিছু কিছু ক্ষেত্রে সক্রিয়ভাবে এই যুদ্ধে অংশগ্রহণও করছি। ’

এদিকে ট্রাম্পের হোয়াইট হাউস এই বিলটিতে প্রেসিডেন্টের ভেটো দেয়ার হুমকি দিয়েছে।  কর্মকর্তারা জানান, ইরানের সঙ্গে আঞ্চলিক সংঘর্ষে সৌদি আরবকে মুক্তভাবে সমর্থন জানানো প্রয়োজন যুক্তরাষ্ট্রের।  ফলে ইয়েমেন যুদ্ধে মার্কিন সহায়তা বন্ধের এই বিলে সমর্থন জানানোর কোন যুক্তি নেই প্রেসিডেন্টের।   

উল্লেখ্য, ২০১৫ সাল থেকে ইয়েমেনে যুদ্ধ করছে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট।  দেশটির দরিদ্র জনগণের উপর চাপিয়ে দেয়া এই অমানবিক যুদ্ধ বন্ধের জন্য বিশ্ববাসী সৌদি আরবের প্রতি বার বার আহবান জানিয়ে আসছে। কিন্তু সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান তাতে কর্ণপাত করছেন না। রক্তক্ষয়ী এই যুদ্ধের জন্য তাকেই দায়ী করা হচ্ছে বেশি।

বাংলা/এফকে

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0173 seconds.