• বাংলা ডেস্ক
  • ১৪ মার্চ ২০১৯ ১৭:৪০:৫৫
  • ১৪ মার্চ ২০১৯ ২২:৩১:০২
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের নির্বাচনকে অবাধ ও সুষ্ঠু বলা যায় না : যুক্তরাষ্ট্র

.

বাংলাদেশে ২০১৮ সালের রাজনৈতিক ও মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে নেতিবাচক বিবরণ দিলো যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইকেল পম্পেও স্থানীয় সময় বুধবার এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেন।

প্রায় ৫০ পৃষ্ঠার এ প্রতিবেদনের শুরুতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে বিতর্কিত ও একপাক্ষিক হিসেবে উল্লেখ করা হয়। এ ছাড়া মানবাধিকার পরিস্থিতির অনেক খারাপ দিকও তুলে ধরা হয়।

প্রতিবেদনের শুরুতে বলা হয়, বাংলাদেশের সংবিধানে সংসদীয় পদ্ধতির সরকার পরিচালনার নীতি থাকলেও বাস্তবে প্রায় সব ক্ষমতা প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়কেন্দ্রিক।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার দল আওয়ামী লীগ টানা তৃতীয়বারের মতো পাঁচ বছরের জয় পেয়েছে এমন নির্বাচনের মধ্য দিয়ে যাকে অবাধ ও সুষ্ঠু বলা যায় না। এ নির্বাচন বিতর্কিত হয়েছে নানা অনিয়মের কারণে, যার মধ্যে রয়েছে জালভোট ও বিরোধী পোলিং এজেন্ট এবং ভোটারদের বাধাদান। নির্বাচনের প্রচার চলাকালে হয়রানি, বাধা, উদ্দেশ্যমূলক গ্রেপ্তার এবং সহিংসতার কারণে বিরোধী পক্ষের প্রার্থীদের পক্ষে গণসংযোগ, মিছিল ও মুক্তভাবে প্রচার অসম্ভব করে হয়ে পড়েছিল।

প্রতিবেদনে নির্বাচন পর্যবেক্ষক আসতে প্রতিবন্ধকতা তৈরির অভিযোগও আনা হয় সরকারের বিরুদ্ধে।

মানবাধিকার পরিস্থিতি সম্পর্কে বলা হয়, বেআইনি হত্যা, বলপূর্বক গুম, নির্যাতন অব্যাহত রয়েছে। সরকার বা তার পক্ষ থেকে জোর করে কারাবরণ, কারাগারে নির্যাতনসহ রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের পরিবেশ না থাকা, মতপ্রকাশে বাধা, বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার কাজে বাধা প্রদান, শ্রমিক সংগঠন করতে দেওয়া হয় না বলৌ প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0777 seconds.