• বাংলা ডেস্ক
  • ১৪ মার্চ ২০১৯ ১৫:৪৮:২৫
  • ১৪ মার্চ ২০১৯ ১৫:৫২:৪৫
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

ভিক্ষুকের ঘরে ১৩ বস্তা টাকা!

ছবি : সংগৃহীত

৭২ বছর বয়সী বৃদ্ধা সাজেদা বেগম। বুধবার দুপুরে তার ঘর থেকে ১৩টি বস্তায় ভর্তি ৭৬ হাজার টাকা এবং ৮৮ কেজি কয়েন উদ্ধার করেছে পুলিশ। উদ্ধার হওয়া এসব টাকা ও কয়েন মুগদা থানার হেফাজতে রয়েছে।

জানা যায়, রাজধানীর দক্ষিণ মান্ডায় এলাকার মাদ্রাসা রোডে জাকির হোসেনের বাড়িতে ‘গুপ্তধন’পাওয়া গেছে এমন খবর গতকাল বুধবার সকালে ছড়িয়ে পড়ে। এমন খবরে ওই বাসার চারপাশে ভিড় করে অসংখ্য কৌতূহলী মানুষ। ঘটনাস্থলে ছুটে আসে পুলিশ।

বাড়িটির মালিক ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের অথরাইজড রিপ্রেজেন্টেটিভ (ট্রেজার) জাকির হোসেন বলেন, 'মাস তিন আগে বৃদ্ধা সাজেদা তার মেয়ে আমেনাকে নিয়ে মাসিক ৪ হাজার টাকায় দুই রুম ভাড়া নেন। প্রতিদিনই রাস্তা থেকে কুড়িয়ে আনা প্লাস্টিকের বস্তা দিয়ে ঘর ভরিয়ে ফেলেন তিনি। এক মাস ১০ দিন পর আমি তার কাছে ঘর ভাড়া চাই। রাতে এসে দেবেন বলে সেই যে তিনি গেলেন আর ফিরে আসেন নাই।'

তিনি বলেন, 'এভাবে কাটে যায় দুই মাস। ভেবেছিলাম ভাড়া জোগাড় করতে না পারায় তারা আর আসবেন না। অন্য কোথাও উঠেছেন। সাজেদা বেগমের ঘর থেকে বস্তার স্তূপ ও নষ্ট কাপড় সরিয়ে সেগুলো বাইরের বারান্দায় এনে রেখেছিলাম। গত সোমবার সকালে এলাকার কয়েকজন ভাঙারি ব্যবসায়ীকে ডেকে আনি সেগুলো বিক্রি করার জন্য। তারা কয়েকটি বস্তা খুলতে দেখেন বস্তাগুলোতে টাকায় ভরা। পরে কৌতূহলবশত ছোট ছোট ব্যাগগুলো খুললে তার ভেতর থেকে বেরিয়ে আসে প্রচুর কয়েন।'

ছয় থেকে সাতজন মানুষ দিয়ে সন্ধ্যা পর্যন্ত গুনে পাওয়া যায় ৭৬ হাজার টাকা (এক টাকা, দুই টাকা থেকে শুরু করে ১০০-৫০০ টাকার নোট) ও ৮৮ কেজি টাকার কয়েন (চার আনা থেকে শুরু করে ৫ টাকা)।

হঠাৎ হন্তদন্ত হয়ে আমেনাকে নিয়ে হাজির হন মা সাজেদা বেগম। আমেনা জানান, তার বাবা মো. সোবহান বেশ কয়েক বছর আগে মারা গেছেন। তার আরো দুই ভাইবোন ছিল। কিন্তু তারাও মারা গেছে। তাই পেটের দায়ে গ্রামের বাড়ি বগুড়ার সোনাতলা দড়িহাসরাস থেকে তারা ঢাকায় আসে। কোনো কাজ না পেয়ে মা-মেয়ে ভিক্ষা করে দিন চালাতেন।সেই থেকে ভিক্ষার টাকা বস্তায়, কাপড়ের ভাঁজে রাখতে শুরু করেন তার মা। টাকা জমানো তার নেশা।

সাজেদা বেগম জানান, বাড়ি ভাড়ার টাকার জন্য নয়, অসুস্থ হয়ে পড়ায় এতদিন তারা আসতে পারেননি। বস্তায় কত টাকা ছিল তা তিনি জানেন না।

এ বিষয়ে মুগদা থানার ওসি প্রলয় কুমার শাহা বলেন, টাকার মালিক ভিক্ষুক বৃদ্ধা ও তার মেয়েকে পাওয়া গেছে। বস্তা থেকে উদ্ধার টাকা তাদের কাছে হস্তান্তরের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

ভিক্ষুক টাকা

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0189 seconds.