• বাংলা ডেস্ক
  • ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ১৯:২০:০৫
  • ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ১৯:২০:০৫
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

‘মাছে বিষ’ জানা যাবে ২ মিনিটে

ছবি: সংগৃহীত

মাছে ক্ষতিকর রাসায়নিক ব্যাবহারের কারণে মাছে-ভাতে বাঙালি এখন বাজারে গেলেই ছোট মাছ খুঁজছে। এ দিকে বড় মাছ বিক্রেতাদের মাথায় হাত! কারণ, ক্ষতিকর রাসায়নিকের ভয়ে এক ধাক্কায় মাছের ব্যবসা অনেকটাই পড়ে গিয়েছে।

কিন্তু সব বড় রুই, কাতলাতেই কি ক্ষতিকর রাসায়নিক মেশানো রয়েছে? সব মাছেই কি বিষ রয়েছে? নিশ্চয়ই নয়! কেরলের সেন্ট্রাল ইনস্টিটিউট অব ফিসারিজ টেকনোলজি-এর তৈরি (Central Institute of Fisheries Technology) এমন একটি ‘কিট’ রয়েছে যার সাহায্যে মাত্র ২ মিনিটেই জেনে নেওয়া যায়, কোন মাছটি রাসায়নিকের প্রভাবে বিষাক্ত বা দূষিত আর কোনটি নয়। এই বিশেষ কিট-এর নাম ‘র‌্যাপিড ডিটেকশন কিট’ (Rapid detection kit)

কীভাবে কাজ করে এই র‌্যাপিড ডিটেকশন কিট?

এই ‘র‌্যাপিড ডিটেকশন কিট’-এ রয়েছে একটি পেপার স্ট্রিপ, যেটি মাছের গায়ে ঘষে সেটির উপর ১ ফোঁটা কেমিক্যাল সলিউশন দিতে হবে। পেপার স্ট্রিপে এই কেমিক্যাল সলিউশন দেওয়ার ২ মিনিটের মধ্যেই পরীক্ষার ফলাফল জানতে পারবেন আপনি। পেপার স্ট্রিপের রং যতটা পরিবর্তিত হবে, বুঝতে হবে ওই মাছটিও ততটাই দূষিত।

সেন্ট্রাল ইনস্টিটিউট অব ফিসারিজ টেকনোলজি-এর গবেষকদের মতে, ফর্ম্যালিন এবং অ্যামোনিয়ার ব্যবহারে তৈরি এই ‘র‌্যাপিড ডিটেকশন কিট’-এর দামও মধ্যবিত্ত ও নিম্ন-মধ্যবিত্তের নাগালের মধ্যেই থাকবে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে মাছের আমদানি-রফতানি বেশ সময় সাপেক্ষ। তাই দীর্ঘদিন মাছ ‘তাজা’ রাখতে ফরমালিন-সহ অন্যান্য ক্ষতিকারক রাসায়নিক পদার্থ মেশানো হয়। ফরমালিন মেশানো মাছ খেলে কিডনি, লিভার-সহ বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা প্রবল। সেই সঙ্গে বিকলাঙ্গতা, এমনকি ক্যানসারেও আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অনেকটাই বেড়ে যায়।

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0204 seconds.