• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ১২ জানুয়ারি ২০১৯ ১৫:৪৫:৫৭
  • ১২ জানুয়ারি ২০১৯ ১৭:৩২:৫০
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

আজও জলকামান-লাঠিচার্জ, আহত ১০, বন্ধ ২০ কারখানা

ছবি : সংগৃহীত

সরকারি মজুরি কাঠামো বৃদ্ধি, বাস্তবায়নের দাবিতে আজও সড়ক অবরোধ করেছে গার্মেন্টস শ্রমিকরা। শনিবার সকাল থেকে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় এবং আশুলিয়া ও গাজিপুরে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে অবস্থান নেয় শ্রমিকরা। এসময় ভাঙচুর করা হয়েছে একটি মোটরসাইকেল ও একটি প্রাইভেট কার।

পরে আশুলিয়ায় এলাকায় লাঠিচার্জ ও জলকামান নিক্ষেপ করে শ্রমিকদের সরিয়ে দেয় পুলিশ। এসময় কমপক্ষে ১০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। গাজিপুরে ২০টি কারখানা ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

জানা গেছে, মিরপুর-১৪ তে সকাল থেকেই সড়ক অবরোধ করে শ্রমিকরা। এতে ওই এলাকায় যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ চলেছে মিরপুর টেকনিক্যাল মোড় এলাকায়ও।

বাংলা কলেজ ও টেকনিক্যাল মোড়ের মধ্যবর্তী এলাকার দু’লেনেই অবস্থান নেয় আশপাশের ৫টি গার্মেন্টস শ্রমিকরা। এতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বাধার মুখে সড়ক ছাড়ে শ্রমিকরা। এসময় বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা একটি মোটরসাইকেল ও একটি প্রাইভেটকার ভাঙচুর করেছে।

এদিকে আশুলিয়ায় আশুলিয়ায় জামগড়া এলাকায় বিক্ষোভ করেছে তৈরি পোশাক শ্রমিকরা। এ সময় শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ জলকামান টিয়ারশেল ব্যবহার ও লাঠিচার্জ করে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করেন। তবে শ্রমিকরা পুলিশের ধাওয়া খেয়ে বিক্ষিপ্তভাবে মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে প্রায় ১০টি গাড়িতে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে ভাঙচুর চালায়। সকাল ৯ টা থেকে বেলা ১১ টা পর্যন্ত প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষে ১০ জন শ্রমিক আহত হয়। এ সময় মহাসড়কে যান চলাচল বিঘ্ন ঘটে। আহতদেরকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

শিল্প পুলিশ ও শ্রমিকরা জানায়, সকাল নয়টার দিকে আশুলিয়ার বেরণ এলাকার ইয়াগী বাংলাদেশ লিমিটেড কারখানার শ্রমিকরা কাজ বন্ধ করে রাস্তায় নেমে আসে। এ সময় তাদের সঙ্গে যোগ দেয় স্থানীয় স্টারলিং ও উইন্ডি অ্যাপারেলস, এআর জিন্সসহ বেশ কয়েকটি কারখানার কয়েক হাজার শ্রমিক। এক পর্যায় শ্রমিকরা বাইপাইল-আব্দুল্লাহপুর সড়ক অবরোধের চেষ্টা করে। এসময় পুলিশ বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ারশেসেল ও জলকামান ব্যবহার করে এবং লাঠিচার্জ করে।

শিল্প পুলিশের এসপি সানা শামিনুর রহমান জানান, বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা প্রায় দশটি গাড়ি ভাঙচুর করে। এ সময় আমরা তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

গাজীপুরের শ্রমিকরা সড়কে নেমে আসলে কয়েকদফা পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা হয়। শ্রমিক আন্দোলনের জেরে অন্তত ২০টি কারখানা ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

পুলিশ ও আন্দোলনরত শ্রমিকরা জানায়, শ্রমিকদের বেতন-ভাতা বাড়ানোর দাবির আন্দোলনে আজ শনিবার সকালে গাজীপুর মহানগরের চান্দনা চৌরাস্তা এলাকার টার্গেট ফ্যাশন কারখানার শ্রমিকরা ঢাকা-গাজীপুর সড়ক অবরোধের চেষ্টা করে । এ সময় পুলিশ ধাওয়া দিয়ে, লাঠিপেটা করে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে দিলে সড়ক যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়।

এছাড়া মোগরখাল এলাকায় বিসিএল কারখানার শ্রমিকরা কাজে যোগ না দিলে তাদের সঙ্গে মালিকপক্ষের লোকজনের ধাওয়া-পাল্টা হয়। নগরের কোনাবাড়ী বিসিক এলাকায় কারখানার শ্রমিকরা ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক অবরোধ করতে চাইলে পুলিশ তাদের ধাওয়া দিয়ে সরিয়ে দেয়।

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

শ্রমিক আন্দোলন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0665 seconds.