• বিদেশ ডেস্ক
  • ০৫ জানুয়ারি ২০১৯ ২১:৫৫:৩০
  • ০৫ জানুয়ারি ২০১৯ ২১:৫৫:৩০
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

জরুরি অবস্থা জারির হুমকি দিলেন ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ছবিঃ সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করতে পারেন বলে হুমকি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। প্রয়োজনে তিনি ফেডারেল সরকারের কাজকর্ম বছরব্যাপী ধরে বন্ধ রাখার হুমকি দেন।

শুক্রবার হোয়াইট হাউসে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এসব কথা বলেন।

ট্রাম্প বলেন, ‘আমি তাই বলেছি, আমি একদম তাই-ই বলেছি। আমি মনে করি না, সেটা হবে। তবে এর জন্য আমি প্রস্তুত রয়েছি।’ 

মার্কিন প্রেসিডেন্ট আরো বলেন, ‘আমি যা করছি, এর জন্য আমি গর্বিত। আমি এটাকে কাজকর্ম বন্ধ বলি না, আমি এটাকে বলি, আমাদের দেশের স্বার্থ ও সুরক্ষার জন্য যা করা উচিত তা।’

অর্থ বরাদ্দের ব্যাপারে কংগ্রেসের অনুমোদন এড়াতে ট্রাম্প প্রেসিডেন্টের জরুরি ক্ষমতা প্রয়োগের কথা ভাবছেন কি না- জানতে চাইলে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘আমি তা করতে পারি। আমরা জরুরি অবস্থা ঘোষণা করতে পারি এবং দ্রুত দেয়াল নির্মাণ করতে পারি। কাজটি করার জন্য এটা আলাদা একটি উপায়।’

বিবিসি বলছে, একই দিন হোয়াইট হাউসে ট্রাম্পের সঙ্গে ডেমোক্রেটিক দলের শীর্ষ নেতাদেরও বৈঠক হয়েছে। সেখানে তারা দেয়ালের জন্য অর্থায়নের বিষয়ে আলাদাভাবে আলাপ-আলোচনায় প্রস্তুত আছেন বলে জানিয়েছেন এবং সরকার বন্ধ রাখাকে অযৌক্তিক বলে আখ্যা দিয়েছেন।

ডিসেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানে চলমান আংশিক অচলাবস্থা বছরব্যাপী থাকলে সেজন্যও প্রস্তুত আছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। এই অচলবস্থার কারণে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংস্থার আট লাখ কর্মী দুই সপ্তাহ ধরে কোনো বেতন পাচ্ছেন না।

ট্রাম্পের দাবি অনুসারে ৫০০ কোটি মার্কিন ডলার দিতে ডেমোক্র্যাটদের আপত্তি রয়েছে। এদিকে ট্রাম্প জানান, তার দাবিমতো অর্থ না দেওয়া পর্যন্ত তিনি কোনো বাজেট প্রস্তাবে স্বাক্ষর করবেন না। অন্যদিকে ডেমোক্র্যাটরা জানিয়েছেন, ১৩০ কোটি ডলারের বেশি দিতে তাদের সম্মতি নেই।

টানা দুই সপ্তাহ বন্ধের ফলে প্রায় ৮ লাখ সরকারি কর্মচারী বেকায়দায় পড়েছেন। শুক্রবারের সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্পকে সে ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, নিয়মিত বেতন পাওয়ার চেয়ে জাতীয় নিরাপত্তার প্রশ্নটি অনেক বেশি জরুরি। তিনি দাবি করেন, দেশের অধিকাংশ মানুষ তার দাবির প্রতি সহমত পোষণ করে।

সর্বশেষ জনমত জরিপ অনুসারে, দেশের ৪৭ শতাংশ মানুষ ফেডারেল সরকার বন্ধ থাকার জন্য ট্রাম্পকে দায়ী করেছেন। ডেমোক্র্যাটদের দায়ী করেছেন এমন আমেরিকানের সংখ্যা ৩৩ শতাংশ।

প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি জানিয়েছেন, শুক্রবার প্রেসিডেন্টের সাথে তাদের বৈঠকটি ছিল ‘বাদানুবাদে পূর্ণ’ 

সিনেটের ডেমোক্রেট নেতা চাক শুমার বলেছেন, ‘আমরা তাকে সরকারের অচলাবস্থা নিরসনের প্রয়োজনীয়তার কথা বলেছি। তিনি পাত্তা দেননি। উল্টো তিনি এ অচলাবস্থা দীর্ঘদিন ধরে চালাবেন বলে জানিয়েছেন। হতে পারে এটি কয়েক মাস কিংবা বছর।’

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0186 seconds.