• ২১ ডিসেম্বর ২০১৮ ২১:৫৪:২৬
  • ২১ ডিসেম্বর ২০১৮ ২১:৫৭:১০
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

অচিনদেশ

ভোটের মাঠের গোলক ধাঁধায়

ফাইল ছবি

আবদুল্লাহ মাহফুজ অভি :

বিটু সাহেব প্রায় দেড় যুগপর পরিবার নিয়ে নিজের দেশে বেড়াতে এসেছেন। দেশে এখন নির্বাচন চলছে। কিছুদিন পরই ভোট। পথে পথে মিছিল। এর মাঝেই কিছুটা ভয়ে ভয়ে দুই ছেলে মেয়ে ও স্ত্রীকে নিয়ে বিটু সাহেব সিনেমা দেখার উদ্দেশ্যে বের হয়েছেন।

কত দিন পর নিজের দেশে হলে গিয়ে সিনেমা দেখবেন। একটু নস্টালজিক হয়ে পড়েছেন তিনি। রাস্তা পার হবেন এমন সময় তিনি টের পেলেন দুই প্রান্ত থেকে দুটি মিছিল আসছে। একটি মিছিল ধানের মাঠের আরেকটি ডিঙ্গি নৌকার।

সে ওই মুহূর্তে রাস্তার মাঝখানের আইল্যান্ডে দাঁড়ানো। মিছিল দুটি কাছে চলে এসেছে। ভয়ে স্ত্রী সন্তানকে জড়িয়ে ধরে দাঁড়িয়ে আছেন... কোন দিক থেকে সংঘর্ষ শুরু হবে এমনটা ভাবছেন বিটু সাহেব। চোখ বন্ধ করে ফেললেন। হঠাৎ টের পেলেন মিছিলের আওয়াজ কমে গেছে। মিছিল দুটো মুখোমুখি হতেই সবাই থেমে গেলো। দুই দলের প্রধান দুই প্রার্থী হাত মিলিয়ে কুশল বিনিময় করলো। তারপর আবার স্লোগান দিয়ে স্ব স্ব মার্কায় ভোট চাইতে চাইতে যে যার পথ ধরলো।

কি আশ্চর্য কোন ধরনের সংঘর্ষ ঘটলো না! সবাই হাসতে হাসতে চলে গেলো! 

কিছুটা দূরেই চোখ পরলো লাল পতাকা টানিয়ে বাম দলের এক প্রার্থী পথসভা করছে। পাশ দিয়ে ধর্ম ভিত্তিক রাজনৈতিক দলের এক প্রার্থীর কর্মীরা যাওয়ার পথে কিছু লিফলেট দিয়ে গেলো এবং কিছু লিফলেট নিয়ে গেলো। মানে লিফলেট বিনিময় হলো। আর যে দল এখন দেশটির ক্ষমতায় রয়েছে সেই দলের ছাত্র সংগঠনের কর্মীরা মিছিল নিয়ে এসে পথসভা চলতে দেখে মিছিলের রুট ঘুরিয়ে অন্য দিকে গেলো। বিটু সাহেব তার স্ত্রীকে বললো ও রাহেলা আমার কি জ্বর উঠছে? রাহেলা বললো কি হয়েছে তোমার? তুমি এমন ঘামছো কেন? শরীর খারাপ লাগছে? চলো বাসায় চলো...।

বিটু সাহেব সিনেমা না দেখেই বাড়ি ফিরে এলো। পথে পথে সে যে দৃশ্য দেখে এসেছে তা বিশ্বাস হচ্ছে না। বিটু সাহেবের ধারনা তার মাথা খারাপ হয়ে গেছে। ভুল-ভাল সিগন্যাল দিচ্ছে মস্তিস্ক। সে যা দেখছে সবই তার কল্পনা। বিটু সাহেব টিভি ছাড়লেন। দেখলেন টিভিতে রাকা ফেরদৌসির রান্নার অনুষ্ঠান চলছে। ভোট উৎসবের দিন ভোট দিয়ে এসে বাড়িতে বসে যে স্পেশাল খাবার খেতে পারেন তার উপর রান্নার অনুষ্ঠান। ‘ভোট উৎসব?’ ভ্রু কুচকে বিটু সাহেব চ্যানেল বদলে ফেললেন। অন্য চ্যানেলে দেখা গেলো দেশটির প্রধান নির্বাচন কমিশনার চিন্তিত স্বরে বলছে ‘আমি ক্ষমা প্রার্থী। সবার জন্য হয়তো লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড করতে পারেনি। গাংদ্বীপে এক প্রার্থীর নির্বাচনী কার্যালয় রাতের আধারে ভাংচুর হয়েছে। যদি এর সমাধান না করা যায় তাহলে আমি পদত্যাগ করবো। জনগণের ভোট অধিকার রক্ষা ও নির্বাচনের সবার সমান সুযোগ দেবো বলে যে শপথ আমি নিয়েছি তা পূরণ করতে না পারলে এ পদে থাকাটা অন্যায় হবে।’

এদিকে অন্য একটি চ্যানেলের খবরে দেখা গেছে রাতে ঝড়ো বাতাসে ছোট সেই নির্বাচন কার্যালয়ের চাল উড়ে গেছে। এ নিয়ে কোনো প্রার্থী বা তার কর্মীরা অভিযোগও করেনি। তারপরও ইসি প্রধান এটা তদন্তের জন্য নিষ্ঠাবান অফিসার নিয়োগ দিলেন।

বিটু সাহেব টিভি বন্ধ করে দিয়ে খাটে শুয়ে বিরবির করে ডাকতে লাগলো রাহেলা ও রাহেলা... রাহেলা কই গেলা। রাহেলা ছুটে এলো। সে জানতে চাইলো কি হয়েছে? বিটু সাহেব বললো প্লেনের টিকিটটা বের করো। আমরা মনে হয় ভুল দেশে চলে আসছি। এইটা আমার অচিনদেশ না। আমরা মনে হয় ভুল ফ্লাইটে উঠেছি। একি কারবার? নির্বাচনে কোনো সহিংসতা নেই, কোনো অভিযোগ নেই, ক্ষমতার দাপট নেই, চুরির ধান্ধা নেই, মানুষের ভোগান্তি নেই, ভোট দিতে পারবে কি পারবে না -এ নিয়ে কারো কোনো উদ্বেগ-উৎকন্ঠা নেই, ভয় নেই...। এ কোন দেশ? সবাই এতো খুশি খুশি মনে ভোটের অপেক্ষা করছে কেন? ভোট মানেতো আমার অচিনদেশে চুরির ধান্ধা, ক্ষমতার সর্বোচ্চ নির্লজ্জ অপব্যবহার, মিথ্যাচার, প্রশাসনের দাম্ভিক আচরণ, দুর্বলকে আরো বেশি দুর্বল আর একা করে দেয়া। ভোট মানে তো হামলা-মামলা-নির্যাতন। ভোট মানে নিজের মত প্রকাশ থেকে বঞ্চিত হওয়ার দুঃখ-কষ্ট-বেদনা। ভোট মানেতো প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের খেলা। কিন্তু এ কি দেখছি রাহেলা? আমি কি পাগল হয়ে গেছি আমরা কি ভুল কোনো দেশে চলে এসেছি? এতো শান্তি এতো সুন্দর এতো সুখতো এইদেশের মানুষের কপালে নাই রাহেলা...  এই সুখ তারা কোথা থেকে পেলো?

রাহেলা প্লেনের টিকিট বের করলো সেখানেও অচিনদেশের নাম লেখা। পাসপোর্টে অচিন দেশলেখা। রাহেলার মাথাতেও কিছু আসছে না। কি হচ্ছে। এ কোন সুখের ঘোরের ভেতর ঢুকে গেছে।

বিটু সাহেবের বাসার ওই ড্রয়িং রুমে এক ঘোর লাগা পরিবেশ। বিটু রাহেলার ড্রয়িং রুমজুড়ে এক অলৌকিক সুখ বিরাজ করছে। বিটু সাহেব কাঁদছে। বিটু বললো শিশুর মতো কাঁদতে কাঁদতে বললো রাহেলা এই অচিন দেশ স্বাধীন করতে ৩০ লাখ মানুষ প্রাণ দিয়েছে। তাদের রক্ত বৃথা যায়নি। প্রকৃত স্বাধীনতার দেখা পেয়েছে মানুষ...। কে যেন গাইছে- এই অচিনদেশটি কোথাও খুঁজে পাবে নাকো তুমি...।

আচ্ছা অচিনদেশের ঘটনা থাকুক। বাংলাদেশের আজকের প্রধান প্রধান গণমাধ্যমের সংবাদ শিরোনাম গুলোতে চোখ বুলিয়ে নিন।

বিজ্ঞাপন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.0198 seconds.