• নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮ ১৬:৩৩:৫৯
  • ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮ ১৬:৩৩:৫৯
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

উদ্যোগ বাস্তবায়নে বৃত্তি দিল এলজি

ছবি : সংগৃহীত

দেশের বিভিন্ন এলাকায় আর্থসামাজিক সমস্যা দূর করার লক্ষ্যে তরুণদের পাঁচটি উদ্যোগে আর্থিক সহায়তা দিয়েছে বহুজাতিক কোম্পানি এলজি ইলেক্ট্রনিক্স বাংলাদেশ। মানুষের কল্যাণে কাজ করার ইচ্ছাশক্তি ও প্রচেষ্টার জন্য ‘এলজি অ্যাম্বাসেডর বৃত্তি’-এর আওতায় তাঁদেরকে এ সহায়তা প্রদান করা হয়। 

মঙ্গলবার রাজধানীর কাওরান বাজারে বেস্ট ওয়েস্টার্ন লা ভিঞ্চি হোটেলে এক অনুষ্ঠানে বৃত্তিপ্রাপ্ত সংগঠনগুলোর প্রতিনিধিদের প্রত্যেকের হাতে চার লাখ টাকার চেক তুলে দেয়া হয়। সংগঠনগুলো হলো- খুলনার কয়রার ইনিশিয়েটিভ ফর কোস্টাল ডেভেলপমেন্ট, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ব্যাচ ৯৭, যশোরের আমরা বেনাপোলের বাসিন্দা, ঢাকার টিডিসি শিক্ষা সহায়তা এবং দিনাজপুরের আসাদউদ্দিন স্মৃতি বিজ্ঞান ক্লাব। 

সুন্দরবনের বাঘের হামলায় নিহতদের বিধবা স্ত্রীদের প্রশিক্ষণ এবং ক্ষুদ্র মূলধন দিয়ে স্বাবলম্বী করতে কাজ করবে খুলনার ইনিশিয়েটিভ ফর কোস্টাল ডেভেলপমেন্ট। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরের হতদরিদ্রদের রিকশা এবং ভ্যান প্রদান করে জীবিকা নির্বাহের ব্যবস্থা করবে ব্যাচ ৯৭। যশোরের সীমান্তবর্তী এলাকা বেনাপোলে শিক্ষা ও সংস্কৃতি চর্চা এবং মাদকের অপকারিতা সম্পর্কে সচেতনতা গড়ে তুলতে কাজ করবে আমরা বেনাপোলের বাসিন্দা। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়েও অর্থের অভাবে ভর্তি হতে পারছেন না এমন শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা দিবে টিডিসি শিক্ষা সহায়তা। সামাজিক বনায়নের পাশাপাশি কৃষিজমিতে কীটনাশক ব্যবহার বিষয়ে সচেতনতা তৈরি করবে দিনাজপুরের আসাদউদ্দিন স্মৃতি বিজ্ঞান ক্লাব। 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এলজি ইলেক্ট্রনিক্স বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডি কে সন বলেন, ‘সমাজ পরিবর্তনের সবচেয়ে বড় হাতিয়ার তারুণ্যের শক্তি। বাংলাদেশের তরুণরা অনেক উদ্যমী। দেশের-সমাজের নানা সমস্যা সমাধানে তরুণরা সক্রিয় ভূমিকা পালন করছে। এমন অনেক কর্মসূচী ইতিমধ্যে সাফল্য ও স্বীকৃতি পেয়েছে। কিন্তু অনেক স্বপ্ন-উদ্যোগ শুধু আর্থিক সক্ষমতা না থাকার কারণে বাস্তবায়িত হতে পারে না। তরুণদের এমন স্বপ্ন বাস্তবায়নে সহযোগিতা করছে এলজি।’

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বেসরকারি সংস্থা গুড নেইবারস বাংলাদেশ’র প্রোগ্রাম সাপোর্ট বিভাগের পরিচালক আনন্দ কুমার দাস এবং এলজি ইলেক্ট্রনিক্স বাংলাদেশের হেড অব কনজ্যুমার ইলেক্ট্রনিক্স মাহমুদুল হাসান। 

বাংলা/এসি

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

এলজি উদ্যোগ বাস্তবায়ন

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.1632 seconds.