• ক্রীড়া ডেস্ক
  • ২৩ জানুয়ারি ২০১৮ ১৯:২৬:৪১
  • ২৪ জানুয়ারি ২০১৮ ১৩:৩৮:০৫
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
advertisement

ছোট পুঁজিতেও টাইগারদের বড় জয়

ছবি: সংগৃহীত

ত্রিদেশীয় সিরিজের নিজেদের তৃতীয় ম্যাচেও জিম্বাবুয়েকে ৯১ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়েছে বাংলাদেশের টাইগাররা। বাংলাদেশের পুঁজিটা খুব বড় ছিল না, মাত্র ২১৬ রানের। তবে ছোট পুঁজিতেও বড় জয়ই তুলে নিলো বাংলাদেশ। মাশরাফি-সাকিবদের বোলিং তোপে জিম্বাবুয়ে গুটিয়ে গেছে ১২৫ রানেই।

২১৭ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে দেখেশুনে শুরু করেন সলোমান মিরে ও হ্যামিল্টন মাসাকাদজা। যদিও প্রথম বলেই রানআউট থেকে অল্পের জন্য বেঁচে যান মিরে। তবে দলীয় ১৪ রানের মাথায় মাশরাফির বলে সাব্বিরকে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান ৫ রান করা মাসাকাদজা।

৬ ওভার শেষে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ যখন ১ উইকেটে ২০ রান তখই আঘাত হানেন বিশ্বসেরা সাকিব আল হাসান। ৭ম ওভারের ৫ম বলে মিরেকে বোল্ড করে বাংলাদেশকে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণে বসান সাকিব। ২২ বলে ৭ রান করেন মিরে। এর পরের বলেই ব্রেন্ডন টেইলরকেও সাজঘরের পথ দেখান সাকিব। রানের খাতা খোলার আগেই ফিরে যান টেইলর।

দলীয় ৩৪ রানের মাথায় ক্রেইগ আরভিনকেও সাজঘরে ফেরান মাশরাফি বিন মর্তুজা। এরপর জিম্বাবুয়ে যখন নিজেদের ইনিংস মেরামতের চেষ্টায় রত, তখনই জোড়া আঘাত হানেন স্পিনার সানজামুল ইসলাম। দলীয় ৬৮ রানের মাথায় পরপর দুই বলে পিটার মুর ও ম্যালকম ওয়েলারকে সাজঘরে ফিরিয়ে হ্যাটট্রিকের সুযোগ তৈরি করেন সানজামুল।

একপ্রান্ত আগলে রেখে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন সিকান্দার রাজা। তা সঙ্গে যোগ দেন অধিনায়ক গ্রায়েম ক্রেমার। দলীয় ৯৫ রানের মাথায় ক্রেমারকে ফেরান রুবেল হোসেন। ৩১ বলে ২৩ রান করেন ক্রেমার। এরপর রাজাকেও বেশিক্ষণ দাঁড়াতে দেন নি মোস্তাফিজুর রহমান। দলীয় ১০৭ রানের মাথায় রাজাকে বোল্ড করে জিম্বাবুয়ের শেষ আশাও শেষ করে দেন কাটার মাস্টার। শেষমেশ মাশরাফি-সাকিবদের বোলিং তোপে জিম্বাবুয়ে গুটিয়ে যায় ১২৫ রানেই।

এর আগে জিম্বাবুয়েকে জয়ের জন্য ২১৭ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দিয়েছিল মাশরাফি বিন মর্তুজার বাংলাদেশ। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ২১৬ রান তুলতে পারে বাংলাদেশ।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের শুরুটা ভাল হয়নি। দলীয় ৬ রানের মাথায় এলবিডব্লিউয়ের শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরে যান ৭ বলে ১ রান করা এনামুল হক বিজয়। এরপর বাংলাদেশের রানের চাকা সচল করেন তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসান।

দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ১০৬ রান যোগ করেন সাকিব ও তামিম। দলীয় ১১২ রানের মাথায় সিকান্দার রাজার বলে স্ট্যাম্পিংয়ের শিকার হন সাকিব। ৮০ বলে ৫১ রান করেন সাকিব। তার বিদায়ের পরপরই অর্ধশতক তুলে নেন ওপেনার তামিম ইকবালও।

দলীয় ১৪৭ রানের মাথায় মুশফিকের বিদায়ের পরপরই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। ৩ উইকেটে ১৪৭ রান থেকে বাংলাদেশের স্কোর দাঁড়ায় ৮ উইকেটে ১৭০। শেষের দিকে সানজামুল ইসলামের ১৯ রানের সুবাদে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২০০ পেরোয়। শেষ পর্যন্ত ৫০ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২১৬ রান তোলে টাইগাররা। সর্বোচ্চ ৭৬ রান আসে ওপেনার তামিম ইকবালের ব্যাট থেকে। তার ১০৫ বলের ইনিংসে ছিল ৬টি চারের মার।

২২ বলে ১৮ রানে অপরাজিত থাকেন মোস্তাফিজুর রহমান। ৪ বলে ৮ রান করেন রুবেল হোসেন।

বাংলা/আরএইচ

advertisement

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বাংলাদেশ ক্রিকেট জয়

আপনার মন্তব্য

advertisement
Page rendered in: 1.3601 seconds.