• ০৪ ডিসেম্বর ২০১৭ ২২:২৪:০১
  • ০৪ ডিসেম্বর ২০১৭ ২২:২৪:০১
অন্যকে জানাতে পারেন: Facebook Twitter Google+ LinkedIn Save to Facebook প্রিন্ট করুন
বিজ্ঞাপন

মানুষের মাংস পরিবেশন করা হয় যে রেস্তোরাঁয়...

প্রতীকী ছবি

এখানে যা রটে তার কিছু তো ঘটে, এমন কথা বলার উপায় নেই। বরং বলা যায় এটি গল্প হলেও সত্যি। জাপানের টোকিও শহরে খুলেছে এক অভিনব রেস্তোরাঁ। তারাই বিশ্বে সর্ব প্রথম খদ্দেরের পাতে তুলে দিচ্ছে মানুষের মাংস।  যাই বলুন, হজম করা কিন্তু শক্ত!

২০১৪ সাল থেকেই এই নিয়ম হামেহাল চালু জাপানে- বিশেষ কিছু শর্তাবলী সাপেক্ষে চাইলে খাওয়া যেতে পারে মানুষের মাংস। ফলে, টোকিওর এই রেস্তোরাঁর আইনসঙ্গতভাবে বাণিজ্যে কোনো অসুবিধা নেই।

মালিক তার এই সাধের ভোজনালয়ের নাম রেখেছেন `রিসোতো ওতোতো নো শোকু রিওহিন`! ইংরেজিতে তর্জমা করলে `এডিবল ব্রাদার`, অর্থাৎ ভাই ভক্ষণ! স্বাভাবিক, পৃথিবীর যে প্রান্তেই থাকুন না কেন, মানুষের সম্পর্ক তো শেষ পর্যন্ত সৌভ্রাতৃত্বেরই!

বিস্ময়ের ব্যাপার- খদ্দের জুটে যাচ্ছে ঠিকই। খবর বলছে, এডিবল ব্রাদার-এর প্রথম খদ্দের ছিলেন এক আর্জেটিনার পর্যটক। খেয়ে-দেয়ে খুব মন্দ কিছু কিন্তু তিনি বলেননি জাত ভাইয়ের মাংস সম্পর্কে। তবে আরো একটু বেশি শক্ত। ওরা রান্না করেছেন নানা মসলাপাতি মিশিয়ে, ফলে মুখে দিয়ে খারাপ কিছু তো মনে হল না`, অকপটে জানিয়েছেন সেই পর্যটক।

টোকিওর এই রেস্তোরাঁ মানুষের মাংসের দাম ধার্য করেছে ১০০ থেকে ১০০০ ইউরো। এক টুকরো থেকে শুরু করে পুরো পদ পর্যন্ত এই দামের বিস্তার। যাতে যার যেমন ইচ্ছা, যতটা ইচ্ছা খেতে পারেন!

দামটা বড়ো বেশি না? সেটাই তো স্বাভাবিক। একে তো জিনিসটা মানুষের মাংস! মানে, আইনসঙ্গত হলেও ক্যাভিয়ারের চেয়েও দুর্লভ খাবার। তার উপর এই মাংস কিনতে রেস্তোরাঁর খরচটাও বিশাল- পাক্কা ৩০,০০০ ইউরো!

রেস্তোরাঁর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, একমাত্র ইচ্ছুক, মৃত্যুপথযাত্রী যুবক-যুবতীরাই তাদের মাংস জুগিয়ে থাকেন। সে ক্ষেত্রে তারা একটি দানপত্রে আইন মেনে উল্লেখ করে যান রেস্তোরাঁর হাতে দেহ তুলে দেওয়ার কথা। তার পরে কী হয়, তা কি আর বলার প্রয়োজন আছে? সূত্র: নেটিজেনস ডেইলি। 

বিজ্ঞাপন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

মানুষ মাংস রেস্তোরাঁ

আপনার মন্তব্য

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
Page rendered in: 0.1623 seconds.