বিদেশ ডেস্ক

অন্যকে জানাতে পারেন:

বিতর্কিত উগ্রপন্থী মুসলিম নেতা রিজিক শিহাব (মাঝখানে)

ইন্দোনেশিয়ার বিতর্কিত উগ্রপন্থী মুসলিম নেতা রিজিক শিহাবের বিরুদ্ধে পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে এক নারী অ্যাক্টিভিস্টের সঙ্গে পর্নো ছবি ও ভিডিও আদান-প্রদানের অভিযোগ রয়েছে বলে স্থানীয় পুলিশ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ খবর জানিয়েছে।

রিজিক শিহাব উগ্রপন্থী সংগঠন ইসলামিক ডিফেন্ডার্স ফ্রন্টের (এফপিআই) প্রধান। এ সংগঠনটিই ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তার জনপ্রিয় সাবেক গভর্নর বাসুকি জাহাজা আহকের বিরুদ্ধে ব্লাসফেমির অভিযোগ তুলেছিল। গত মাসে ব্লাসফেমি আইনে আহকের কারাদণ্ডের রায় হয়েছিল।

উসকানিপূর্ণ বক্তব্য দিয়ে জনগণকে অস্থিশীল করে সহিংস পরিস্থিতি সৃষ্টির অভিযোগে এর আগে রিজিকের দুইবার কারাদণ্ড হয়েছিল।

তবে এবার রিজিকের বিরুদ্ধে পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা হয়েছে। শরিয়া আইনের বিধান থাকা বেশ কয়েকটি মুসলিম-প্রধান দেশের মতোই ইন্দোনেশিয়ায় কঠোর পর্নোগ্রাফি আইন রয়েছে।

রিজিকের বিরুদ্ধে এফপিআই-এর নারী অ্যাক্টিভিস্ট ফিরোজা হুসেইনের সঙ্গে পর্নোগ্রাফি বিষয়ক বার্তা, ছবি ও ভিডিও আদান-প্রদান করেছেন। ফিরজা হুসেইনের বিরুদ্ধেও একই অভিযোগ আনা হয়েছে।

রিজিক ও ফিরজার মধ্যে যেসব বার্তা আদান-প্রদান হয়েছে, তার স্কিনশট ছবি চলতি বছরের প্রথমদিকে অনলাইনে ছড়িয়ে পড়ে।

চলতি বছরের এপ্রিল থেকে পুলিশ বেশ কয়েকবার রিজিককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকেছে। কিন্তু তিনি তাতে সাড়া দেননি। এপ্রিলের শেষ দিকে তিনি সপরিবারে সৌদি আরবেই অবস্থান করছেন।

তবে এফপিআই-এর এক মুখপাত্রের দাবি, ‘এসব অভিযোগ ভিত্তিহীন এবং রিজিককে অপদস্থ করার জন্য এমনটা করা হয়েছে।’ রিজিকের আইনজীবী এসব অভিযোগ অস্বীকার করে সাবেক গভর্নর আহকের সমর্থকদের বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, ‘তারাই রিজিকের বিরুদ্ধে ওইসব অভিযোগ তৈরি করেছেন।’

উল্লেখ্য, আহকের বিরুদ্ধে ব্লাসফেমির অভিযোগ তুলে তা প্রচারণায় সবচেয়ে কঠোর অবস্থায় ছিলেন রিজিক। তার দলের নেতারা ক্রমাগত ধর্মীয় উসকানিমূলক বক্তব্য দিয়ে আসছে।

    আপনার মন্তব্য

    advertisement

    advertisement