ফিচার ডেস্ক

অন্যকে জানাতে পারেন:

advertisement
ছবি: সংগৃহীত

লেবুর শরবত সহজেই তৈরি করা যায় বলে সারাবছর ধরেই এটি একটি জনপ্রিয় পানীয়। রমজান মাসে ইফতারে লেবুর শরবতের যেন কোনো বিকল্প নেই। সারাদিন রোজা রাখার পর ইফতারে এক গ্লাস ঠাণ্ডা লেবুর শরবত দেহের জন্য দারুণ উপকারী। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ এই ফল জ্বর, সর্দি, কাশি ও ঠাণ্ডাজনিত সমস্যায় লেবু অত্যন্ত কার্যকর।

জেনে নিন লেবুর শরবতের কয়েকটি গুণ -

পানিশূণ্যতা রোধ-

লেবুতে ভিটামিন বি, রিবোফ্লাভিন, ক্যালসিয়াম, ফরফরাস, ম্যাগনেসিয়াম ইত্যাদি উপাদান বিদ্যমান। সারাদিন রোজা রাখার পর শরীরে যে পানিশূণ্যতার সৃষ্টি হয়, লেবুর শরবত তা পূরণে কার্যকর ভুমিকা পালন করে।

হজম শক্তি বাড়ায়-

এক গ্লাস কুসুম গরম পানির সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে খেলে হজমের শক্তি বৃদ্ধি পায়। গ্যাসজনিত সমস্যা যাদের আছে এটি তাদের জন্য উপকারী। কারণ, লেবুর পানি খুব সহজে পরিপাক নালির মধ্যে থাকা টক্সিন শরীর থেকে বের করে দেয়।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে-

লেবুর মধ্যে রয়েছে ভরপুর ভিটামিন সি। যে কারণে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে।

অ্যান্টিভাইরাল ও অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল-

এই দুটি গুণও লেবুর মধ্যে রয়েছে। ফলে, ভাইরাস ও ব্যাক্টেরিয়ার সংক্রমণ এড়াতে লেবুর পানি খেতে পারেন। বিশেষ করে ফ্লু, সর্দি-কাশি ও গলাব্যথা হলে।

এনার্জি জোগা-

লেবুর শরবত, ইনস্ট্যান্ট এনার্জি বৃদ্ধি করে। প্রতিদিন লেবুর পানি খাওয়ার অভ্যাস করলে মেজাজ থাকবে ফুরফুরে আর কাজেও পাবেন শক্তি।

ওজন কমাতে- 

ওজন কমাতে বা মেদ ঝরাতে লেবুর তুলনা নেই।  এটি খুব দ্রুত কাজ করে। হালকা গরম পানিতে, লেবুর রসের সঙ্গে মধু মিশিয়ে খেলে আরও ভালো কাজ করে।  

মস্তিষ্ক ভালো রাখে-

লেবুর মধ্যে রয়েছে অতিমাত্রায় পটাশিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম। যা শুধু মস্তিষ্ক নয়, স্নায়ুকেও সতেজ রাখতে সাহায্য করে। চিন্তাশক্তি বাড়ায়।

ক্যান্সার প্রতিরোধক-

লেবুর মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট বিভিন্ন ধরনের ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়। এছাড়া এটি রক্ত পরিষ্কার করতেও সাহায্য করে। এবং মুখের স্বাদ বৃদ্ধি করে।  

দাঁতের সুরক্ষা ও মুখের দুর্গন্ধ দূর করে-

লেবুর মধ্যে রয়েছে ক্যালসিয়াম যা দাঁতের জন্যে দরকারি। এছাড়া রমজান মাসে অনেকের মুখে দুর্গন্ধ হতে পারে। লেবুতে ভিটামিন সি সহ আরো বেশ কিছু উপাদান আছে যা মুখের দুর্গন্ধ কমায়।

বাংলা/এবি/এমএইচ

advertisement

আপনার মন্তব্য