নিজস্ব প্রতিবেদক

অন্যকে জানাতে পারেন:

advertisement
fbcci
ছবি: সংগৃহীত

এফবিসিসিআই এর সম্মেলন কক্ষে বুধবার বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি; ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রি (এফবিসিসিআই) এর সঙ্গে ভারতের বেঙ্গল চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির ইন্টারন্যাশনাল ই.আর.পি(অ্যানগেজ; রিফ্লেক্ট অ্যান্ড প্ল্যান অব অ্যাকশন) বিষয়ে এক মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সাধারণ সদস্য পরিষদের সদস্য হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস) এর সভাপতি ইঞ্জি. সুব্রত সরকার। তিনি বলেন, বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ আইটি সংগঠন বিসিএস বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তির উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ভারতের নেসকমের সঙ্গেও আমরা যৌথভাবে কাজ করি। ভারতীয় প্রতিষ্ঠানগুলো যত সহজে বাংলাদেশে কাজ করতে পারে, বাংলাদেশি আইটি প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য ভারতে কার্যালয় পরিচালনা বা পণ্যের বিপণন করার প্রক্রিয়াগুলো অতটা সহজ নয়। তাই আমরা এফবিসিসিআই এর মাধ্যমে আপনাদের কাছে এই প্রক্রিয়াকে সহজ করার আহবান জানাই।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে সফটওয়্যারের বাজার সমৃদ্ধ হচ্ছে। এছাড়াও যশোরস্থ শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে আইটি সেক্টরে কাজ করার জন্য ভৌত অবকাঠামো, হাইস্পিড ইন্টারনেট কানেকটিভিটিসহ যুগোপযাগী সব ধরণের সুযোগ সুবিধা প্রদান করা হয়েছে। আমরা আন্তরিকভাবে ভারতের প্রতিষ্ঠানগুলোকে এই পার্কে যৌথভাবে অথবা এককভাবে কাজ করার আহবান জানাই।

সুব্রত সরকার বলেন, পৃথিবীতে প্রতিদিন হার্ডওয়্যারের চাহিদা বাড়ছে। দুরত্বের দিক থেকে যশোর ভারতের সন্নিকটে। তাই হার্ডওয়্যার উৎপাদনের জন্য ভারতীয় আইটি প্রতিষ্ঠানগুলোর বিনিয়োগ করার সুযোগ রয়েছে। আইসিটি মন্ত্রণালয়সহ প্রযুক্তি সংগঠনগুলো বিনিয়োগে পরিপূর্ণ সহযোগিতা প্রদান করবে।

বিসিএস সভাপতির বক্তব্যকে গুরুত্ব দিয়ে এফবিসিসিআই এর সভাপতি মো. শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন ভারতের বেঙ্গল চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি  চন্দ্র শেখর ঘোষকে বাংলাদেশে আইটি সেক্টরে বিনিয়োগ করার আহবান জানান। চন্দ্র শেখর ঘোষ এই প্রস্তাবে সদয় সম্মতি জ্ঞাপন করে বিষয়টি বিবেচনা করার সংকল্প ব্যক্ত করেন।

এসময় বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির(বিসিএস) মহাসচিব মোশারফ হোসেন সুমন এবং পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান তুহিনসহ অন্যান্য এফবিসিসিআই এর পরিচালকগণ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলা/এসি

advertisement

আপনার মন্তব্য