বিনোদন প্রতিবেদক

অন্যকে জানাতে পারেন:

mila
মিলা ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত

স্বামী পারভেজ সানজারির বিরুদ্ধে দায়ের করা যৌতুক আইনের মামলায় জামিনের বিরোধিতা করে আদালতে দাঁড়িয়ে অঝোরে কাঁদলেন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী মিলা ইসলাম।

সোমবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ মো. কামরুল হোসেন মোল্লার আদালতে সানজারির জামিন আবেদনের শুনানির সময় এমন দৃশ্যের অবতারণা হয়।

গত ২৫ অক্টোবর সানজারিকে সোমবার পর্যন্ত জামিন দেন আদালত। জামিনের মেয়াদ শেষ হতে যাওয়ায় সোমবার আইনজীবীর মাধ্যমে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন সানজারি।

বেলা আড়াইটার দিকে জামিন আবেদনের ওপর শুনানি হয়। সে সময় আদালতে উপস্থিত হন মামলার বাদী কণ্ঠশিল্পী মিলা।

শুনানিতে মিলা তার স্বামী সানজারির জামিন আবেদনের বিরোধিতা করে বলেন, ‘বিয়ের চারদিন পর জোর করে আমাকে তালাক দিতে বলে সানজারি। আমি রাজি না হওয়ায় আমার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করে। বিয়ের আগে তার সঙ্গে আমার ১১ বছরের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ১১ বছরে কোনো সমস্যা হয়নি। কিন্তু বিয়ের চারদিনের মধ্যে তার আচরণ পরিবর্তন হয়ে যায়। আমি তার জামিন নামঞ্জুরের জন্য আদালতের কাছে অনুরোধ করছি।’ এ সময় কান্নায় ভেঙে পড়েন মিলা।

পরে আসামিপক্ষের আইনজীবীকে বাদীর সঙ্গে মিমাংসা করতে বলে আগামী ২৭ নভেম্বর পর্যন্ত আদালত সানজারির জামিন মঞ্জুর করেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল।

গত ৫ অক্টোবর রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় মারধর ও যৌতুকের অভিযোগে মিলা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়ের পরই সানজারিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরদিন পুলিশ তাকে আদালতে হাজির করে পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আদালত রিমান্ড ও জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে সানজারিকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এরপর গত ৯ অক্টোবরও আদালত এ আসামির জামিন নামঞ্জুর করেন।

মিলার দায়ের করা মামলায় বলা হয়, বিয়ের পর পর্যায়ক্রমে কয়েকবার এ ধরনের মারধরের ঘটনা ঘটেছে। সর্বশেষ গত ৩ অক্টোবর তাকে মারধর করা হয়। এর আগে তার স্বামী সানজারি পাঁচ লাখ টাকা যৌতুক নিয়েছেন।

মামলায় আরও বলা হয়, যৌতুক নেওয়ার পর সানজারি আরও ১০ লাখ টাকা দাবি করেছেন। টাকা না পেয়ে তার স্বামী তাকে মারধরও করেছেন। একটি বেসরকারি এয়ারলাইন্সের পাইলট পারভেজ সানজারির সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে মিলার প্রেমের সম্পর্কের পর গত ১২ মে তারা বিয়ে করেন।

আপনার মন্তব্য