মিলা ও তার সাবেক স্বামী পারভেজ সানজারি। ফাইল ছবি

দশ বছরের প্রেমের সম্পর্কের বৈমানিক পারভেজ সানজারিকে বিয়ে করেছিলেন পপ গায়িকা মিলা। কিন্তু বিয়ের কয়েক মাস যেতে না যেতেই ঘর ভাঙলো তাদের। কয়েকদিন আগে স্বামীর বিরুদ্ধে পরকীয়া ও যৌতুকের অভিযোগ তুলে বিচ্ছেদের ঘোষণা দিয়েছেন এ শিল্পী। এছাড়াও একই অভিযোগে সাবেক স্বামীকে জেলের ভাতও খাইয়েছেন তিনি। শুধু স্বামীকেই নয়, শাশুড়ি ও দেবররের নামেও মামলা করেছেন মিলা।

তবে স্বামীর বিরুদ্ধে মিলার আনিত এসব অভিযোগ মিথ্যা বলেই দাবী করছেন পারভেজ সানজারির পরিবার ও তার বন্ধুবান্ধব। তাদের পাল্টা অভিযোগ, তারকা খ্যাতি ও ক্ষমতার অপব্যবহার করছেন মিলা। তাদের এমন দাবীর পরিপ্রেক্ষিতেই সানজারির বিরুদ্ধে যে পরকীয়ার অভিযোগ করে আসছিলেন সেটার প্রমাণ ফেসবুকে নিজের ভেরিফাইডে পেজে দিয়েছেন মিলা।

সেখানে সানজারির চ্যাটিংয়ের স্ক্রিন শট প্রকাশের মাধ্যমে তিনি বিষয়টা স্পষ্ট করেছেন। প্রায় ৮৬টি স্ত্রিন শট তিনি ফেসবুকে দিয়েছেন। সেই সঙ্গে তার স্বামীর সঙ্গে মোবাইলে যে কথপোকথন হয়েছে সেই কথা রেকর্ডিং করে ও স্ক্রিনশট দিয়ে একটি ভিডিও আপলোড করেছেন। ৭ মিনিটের সেই ভিডিও’র কথোপকথনের পাশাপাশি মিলা ওই ভিডিও’র একটি ক্যাপশনও দিয়েছেন।

ক্যাপশনে মিলা লিখেছেন, ‘আমার বিয়ের ১৮তম দিনে কথা বার্তা বলতে গিয়ে আমার স্বামী অন্য অনেক নারীর সঙ্গে তার পরকীয়ার ব্যাপারে ধরা খেয়ে যায়। কেন আমি এসব ১০ বছরেও তার এই বিষয়টা জানতে পারলাম না? ভাল, স্বামীর অনেক বিষয় আছে যা স্ত্রী একদিনে বুঝে ফেলতে পারে। কিন্তু একজন প্রেমিকা সেটা ১০০ বছরেও বুঝতে পারে না। আমার স্বামী যখন দেশের বাইরে যায়, আমি আমার মেইল চেক করার জন্য তার কম্পিউটার চালু করি।

আমি দেখতে পাই আমার স্বামীর ফেসবুক লগ ইন করা। যেটার এক্সেস ও (সানজারি) আমাকে কোনদিন দেয় নাই। এবং এমনকি আমি তার ফ্রেন্ড লিস্টেও ছিলাম না। কারণ সে প্রাইভেসি মেইন্টেইন করতে চাইতো। যখন আমি তার সম্পর্কে ভয়ংকর সব তথ্য পাই, হ্যাঁ এই ১৩ দিনে আমি তার সম্পর্কে যা জানতে পারলাম, সেটা ১০ বছরেও জানতে পারিনি। আশা করি আপনারা এখন সব বুঝতে পেরেছেন!

আপনার মন্তব্য