ক্রীড়া ডেস্ক

অন্যকে জানাতে পারেন:

ছবি: সংগৃহীত

এশিয়া কাপ হকির দ্বিতীয় ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে ৭-০ গোলে হেরেছে বাংলাদেশ। শুরুতে পাকিস্তানের আক্রমণগুলো ভালোভাবে রুখে দিলেও তৃতীয় কোয়ার্টারের থেকে হঠাৎ এলোমেলো হয়ে যায় বাংলাদেশ। তবে কী এমন হয়েছিল, যে সাত গোল খেতে হলো?

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ অধিনায়ক রাসেল মাহমুদ জিমি বললেন, ‘আমাদের শুরুটা ভাল ছিল। কিন্তু তৃতীয় কোয়ার্টারে খেলা আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়, পাকিস্তান গোল করতে শুরু করে। আসলে আমরাই ভুল করে তাদের গোলের সুযোগ করে দিয়েছি।’

আন্তর্জাতিক ম্যাচে এ ধরনের ভুল করলে ফিরে আসা কঠিন বলে মনে করেন জিমি, ‘আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এ ধরনের ভুল হলে ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ানোর সময় এবং সুযোগ খুব বেশি থাকে না। আমরা ভুলগুলো শোধরাতে পারিনি। পাকিস্তানের মতো দলের কাছে বল লুজ করা মানে গোল অথবা পেনাল্টি কর্নার।’

আগামী শুক্রবার টুর্নামেন্টের আরেক শক্তিশালী দল ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। আজকের ম্যাচের ভিডিও ফুটেজ দেখে ভুল সংশোধন করার লক্ষ্য দেশের সবচেয়ে বড় হকি তারকার, ‘আজকের ভিডিও ফুটেজ দেখে ভুল শোধরাতে না পারলে পরের ম্যাচও খারাপ করার আশঙ্কা থাকবে। আশা করি, ভারতের বিপক্ষে আমরা ভালো খেলতে পারবো।’

নিষেধাজ্ঞার কারণে সারোয়ার হোসেন খেলতে পারছেন না এশিয়া কাপে। দলের নির্ভরযোগ্য মিডফিল্ডারকে না পাওয়ার বেদনা ফুটে উঠেছে জিমির কণ্ঠে, ‘সারোয়ার থাকলে অবশ্যই অনেক ভালো হতো। এখন হকিতে মিডফিল্ডার কিংবা ফরোয়ার্ড কেউ এক জায়গায় খেলে না, ক্রমাগত শিফটিং হতে থাকে।’

৩২ বছর আগে ঢাকায় অনুষ্ঠিত এশিয়া কাপে দারুণ লড়াই করে ১-০ গোলে হেরেছিল বাংলাদেশ। তবে এশিয়ার সেরা টুর্নামেন্টে বাকি তিনটি লড়াইয়ে দাঁড়াতে পারেনি। ১৯৮২ সালে ৯-০ আর ২০০৩ সালে ৮-০ গোলের পর এবার হার মানলো ৭-০ গোলে। পাকিস্তানের মুখোমুখি হলে বাংলাদেশ কি ভয়ে কুঁকড়ে যায়? প্রশ্নটা মানতে চাইলেন না জিমি, ‘আমরা ভয় পাইনি। ভয় পেলে কিন্তু প্রথম দুই কোয়ার্টারে আমরা ভালো খেলতে পারতাম না। আমাদের ডিফেন্স ভালো ছিল, ফরোয়ার্ড ভালো ছিল। আমাদের ভুলের কারণে থার্ড কোয়ার্টার থেকে ওরা গোল পেয়েছে।’

পাকিস্তানের বিপক্ষে নিজেদের পরিকল্পনার কথাও জানালেন স্বাগতিক অধিনায়ক, ‘আমাদের পরিকল্পনা ছিল শর্ট পাসে খেলা, বল কন্ট্রোল করা, লং পাস না দেওয়া। কোচও তেমন নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু ফুল প্রেস করার কারণে আমরা বল হারিয়েছি। আবার ডজ দিতে গিয়েও বলের কন্ট্রোল হারিয়েছি।’

ম্যাচেও বাংলাদেশের যে কোনও ‘কন্ট্রোল’ ছিল না, সেটা তো স্কোরলাইনেই পরিষ্কার! 

আপনার মন্তব্য

advertisement