ক্রীড়া ডেস্ক

অন্যকে জানাতে পারেন:

Amalesh Sen
অমলেশ সেন। ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশের ফুটবলের অন্যতম প্রবীণ কোচ অমলেশ সেন হঠাৎ করেই চলে গেলেন না ফেরার দেশে। হৃদ্‌যন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে শনিবার সন্ধ্যায় তিনি মারা যান। মৃত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর।

আবাহনীর সঙ্গে জড়িয়ে ছিলেন ক্লাবের জন্মলগ্ন থেকেই। খেলোয়াড় হিসেবে খেলেছেন। কোচ হিসেবে কাজ করেছেন জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত।

আবাহনীর ভালো কিংবা খারাপ যেকোনো সময় অমলেশ ছিলেন দেশের অন্যতম জনপ্রিয় এই ক্লাবের কান্ডারি। আবাহনীতে এসেছেন অনেকেই, এই ক্লাব ছেড়েও গেছেন অনেকে। কিন্তু ধানমন্ডির ক্লাব টেন্টে গেলে যে মানুষটিকে সার্বক্ষণিক দেখা যেত, তিনি অমলেশ সেনই।

আবাহনীর কোচিং-স্টাফে যে নামটি সব সময়ই খুঁজে পাওয়া যেত, তিনি অমলেশই। ক্লাবটিতে বিদেশি কোচ এসেছে অনেক। সবারই সহযোগী হিসেবে কাজ করেছেন তিনিই। এ মৌসুমেও সার্বিয়ান কোচ দ্রাগো মামিচের সহযোগী হিসেবে কাজ করছিলেন। আজ বিকেলেও খেলোয়াড়দের নিয়মিত অনুশীলন করিয়েছেন। অনুশীলনের পরপরই হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। এরপর প্রথমে ধানমন্ডির বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ ও পরে হৃদ্‌রোগ ইনস্টিটিউটে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু সেখানেই সন্ধ্যায় কর্তব্যরত চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আবাহনীর ম্যানেজার, জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক সত্যজিৎ রায় রূপু বলেন, ‘বিকেলে অনুশীলনের পর টিম মিটিংয়েও ছিলেন অমলেশ দা। এরপরই তিনি হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন।’ 

১৯৪৩ সালে ২ মার্চ বগুড়া জেলায় জন্মগ্রহণ করেন প্রবীণ এই ফুটবল গুরু। বর্ণালী ক্যারিয়ারে খেলেছেন স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের হয়েও ।

ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন বাইটন ক্লাবের হয়ে বগুড়ায় পাঁচ বছর খেলে চলে আসেন রাজধানীতে। ১৯৬২ থেকে ১৬৯ পর্যন্ত খেলেন ফায়ার সার্ভিস ও ইস্ট অ্যান্ড ক্লাবে। ১৯৭০ সালে যোগ দেন ঢাকা মোহামেডানে। স্বাধীনতা যুদ্ধের পরে ১৯৭২ সালে যোগ দেন আবাহনীতে। সেই থেকে টানা ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত খেলেছেন তার প্রিয় দলেই। অবসর গ্রহণের পর আবাহনীর কোচ হিসেবেই ছিলেন আমৃত্যু। আবাহনী আর অমলেশ নামটি যেন হয়ে উঠেছিল একে অন্যের পরিপূরক। তার মৃত্যুতে যেন সমাপ্তি ঘটল বাংলাদেশের ফুটবলের একটি অধ্যায়েরই।

আপনার মন্তব্য

advertisement