বাংলা ডেস্ক

অন্যকে জানাতে পারেন:

advertisement
ছবি: সংগৃহীত

পাঁচ বছরের ছেলেকে মানুষ করতে প্রতিনিয়ত মৃত্যুকূপে মোটরসাইকেলে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন এক মা। নিজে বেশি দূর লেখাপড়া না করতে পারলেও ছেলেকে পড়াচ্ছেন ভালো স্কুলে। ছেলেকে ঘিরে তার যত স্বপ্ন। আর এই স্বপ্ন পূরণ করতে প্রতিদিন মৃত্যুকূপে মোটরসাইকেলের খেলা দেখান মা।

সাধারণত এই ধরনের খেলায় পুরুষ খেলোয়াড়দেরই আধিপত্য দেখা যায়। তবে শুধু ছেলে রেহানের জন্যই অর্থ উপার্জনের এই পথ বেছে নিয়েছেন মা রেহানা।

ভারতের রাঁচিতে চলছে জগন্নাথপুর মেলা। এই মেলায় আয়োজন করা হয়েছে মোটরসাইকেল কসরত—মৃত্যুকূপ। এই খেলায় প্রতিদিনই এখন অংশ নেন রেহানা। ৩০ ফুট গভীর কূপের দেয়াল ঘিরে রেহানার স্টান্টবাজি দেখে হাততালি দেন দর্শকেরা। কূপে মাচার মতো একটি জায়গায় মই দিয়ে উঠে দর্শকেরা খেলা দেখেন। রেহানার খেলা দেখতে এতটাই ভিড় হচ্ছে যে মাচা ভেঙে পড়ার আশঙ্কায় করছে মেলা কর্তৃপক্ষ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এখন নির্দিষ্ট সংখ্যার বেশি দর্শক ঢুকতে দিচ্ছে না পুলিশ।

রেহানার ছেলে থাকে দিল্লির সন্তনগরে, তার নানা-নানির কাছে। রেহানা বলেন, ‘ছেলেকে মানুষ করার জন্য মায়েরা তো কত কিছুই করে। আমি এই বিপজ্জনক খেলা দেখাচ্ছি। উপার্জন করছি। ছেলের মুখ মনে পড়লে কোনো বিপদকেই আর বিপদ বলে মনে হয় না।’

দিল্লির সন্তনগরের খুবই গরিব পরিবারের মেয়ে রেহানা একটু বড় হতেই এক প্রতিবেশীর মোটরসাইকেল নিয়ে চালানো শেখেন। পরে বন্ধুদের মোটরসাইকেল নিয়ে ঘুরে বেড়াতেন তিনি। তিনি বলেন, ‘একবার আমাদের পাড়ায় এ রকম মৃত্যুকূপের খেলা বসেছিল। আমি ঠিক করলাম ওই খেলা আমিও দেখাব।’ প্রথমে ওই খেলার আয়োজকেরা তাঁকে নিতে চাননি। পরে তাঁর আগ্রহ দেখে অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া হয়। চমৎকার খেলা দেখান। পরে ওই আয়োজকের একজনকে বিয়ে করেন তিনি।

রেহানা বলেন, ‘আমি বেশি দূর পড়াশোনা করতে পারিনি। কিন্তু ছেলেকে ভালো স্কুলে পড়াচ্ছি।’ ছেলেকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন রেহানার। সেই স্বপ্নের কাছে এই ৩০ ফুটের মৃত্যুকূপ তো কিছুই না। 

সূত্র: আনন্দবাজার।

advertisement

আপনার মন্তব্য